অক্টোবরে নির্বাচনকালীন সরকার: ওবায়দুল কাদের

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ জুন ২০১৮, বুধবার, ২:৫৬ | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৫৫
নির্বাচনকালীন সরকার আগামী অক্টোবরে গঠিত হতে পারে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ  সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। নির্বাচনকালীন সরকারের আকার ছোট হবে।  এবং বিষয়টি পুরোপুরি প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার বলে জানিয়েছেন তিনি। আজ বুধবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও  সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, নির্বাচনের শিডিউল  ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে নির্বাচনকালীন সরকার দায়িত্ব গ্রহণ করবে। নির্বাচনকালীন সরকার বলতে নতুন কোনো  সরকার গঠিত হবে না। বর্তমান সরকারই নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব নেবে। তবে, নির্বাচনকালীন সরকারের  আকার এতো ঢাউস হবে না। মন্ত্রিপরিষদের আকার ছোট হবে।
তবে, এ বিষয়টি পুরোপুরি প্রধানমন্ত্রীর  এখতিয়ার। তিনিই চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো একতরফা নির্বাচন হবে না। অনেক বেশি দল নির্বাচনে আসবে। বিএনপি না আসলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে কেন? নির্বাচন কমিশন নির্বাচন   পরিচালনা করবে। সেখানে যদি সংবিধান লঙ্ঘন হয় তখনই নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে। বিএনপির উদ্দেশে তিনি  বলেন, জাতীয় নির্বাচনকে তারা ভয় পাচ্ছে কেন? সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে তো ভয় পাচ্ছে না। বিএনপির  আন্দোলনের ঘোষণার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণ সাড়া দেবে না। দেশে কোনো আন্দোলন হবে না। তাদেরও দলীয় কোনো প্রস্তুতি নেই।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

kazi

২০১৮-০৬-২০ ১০:১৬:৫২

কাজে মনোযোগ দিলে দেশ ও দলের উপকার বেশী হবে। সংসদে দলীয় সাংসদই প্রশ্ন তুলেছেন - জনগণ তার কাছে প্রশ্ন রেখেছে দেদার টাকা রাস্তায় ঢেলে ও কেন বছর ঘুরতে না ঘুরতেই রাস্তা খানা খন্দে পরিণত হয়। মন্ত্রীর দায়িত্ব চোখ বুঝে শুদু রাস্তায় টাকা ঢালা নয়। টাকার বিনিময়ে কাজ বুঝে নেওয়াই মন্ত্রীর দায়িত্ব। বড় বড় বক্তব্য দেওয়াও মন্ত্রীর কর্তব্যের আওতায় পড়ে না। তাই মন্ত্রীত্ব দলীয় কর্মকাণ্ড এক ব্যক্তির ঘাড়ে দেওয়া ঠিক নয়।

kazi

২০১৮-০৬-২০ ০৭:২০:১৯

কাজে মনোযোগ দিলে দেশ ও দলের উপকার বেশী হবে। সংসদে দলীয় সাংসদই প্রশ্ন তুলেছেন - জনগণ তার কাছে প্রশ্ন রেখেছে দেদার টাকা রাস্তায় ঢেলে ও কেন বছর ঘুরতে না ঘুরতেই রাস্তা খানা খন্দে পরিণত হয়। মন্ত্রীর দায়িত্ব চোখ বুঝে শুদু রাস্তায় টাকা ঢালা নয়। টাকার বিনিময়ে কাজ বুঝে নেওয়াই মন্ত্রীর দায়িত্ব। বড় বড় বক্তব্য দেওয়াও মন্ত্রীর কর্তব্যের আওতায় পড়ে না। তাই মন্ত্রীত্ব দলীয় কর্মকাণ্ড এক ব্যক্তির ঘাড়ে দেওয়া ঠিক নয়।

kazi

২০১৮-০৬-২০ ০২:৩৬:১৭

কাজে মনোযোগ দিলে দেশ ও দলের উপকার বেশী হবে। সংসদে দলীয় সাংসদই প্রশ্ন তুলেছেন - জনগণ তার কাছে প্রশ্ন রেখেছে দেদার টাকা রাস্তায় ঢেলে ও কেন বছর ঘুরতে না ঘুরতেই রাস্তা খানা খন্দে পরিণত হয়। মন্ত্রীর দায়িত্ব চোখ বুঝে শুদু রাস্তায় টাকা ঢালা নয়। টাকার বিনিময়ে কাজ বুঝে নেওয়াই মন্ত্রীর দায়িত্ব। বড় বড় বক্তব্য দেওয়াও মন্ত্রীর কর্তব্যের আওতায় পড়ে না। তাই মন্ত্রীত্ব দলীয় কর্মকাণ্ড এক ব্যক্তির ঘাড়ে দেওয়া ঠিক নয়।

আপনার মতামত দিন

সমাবেশে যোগ দিয়েছেন বি. চৌধুরী

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন রিভিউয়ে পাঠাতে প্রেসিডেন্টের প্রতি সিপিজের আহ্বান

ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশ শুরু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মৌলিক অধিকার পরিপন্থি: সুজন

ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে গুলি, বহু হতাহত (ভিডিও)

প্রতিমা ভাংচুর করায় ইউপি সদস্য আটক

সাকা চৌধুরীর কবরের নাম ফলক উপড়ে ফেলেছে ছাত্রলীগ

কুষ্টিয়ায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট শুরু

পেট্রোল বোমাসহ ৫ শিবিরকর্মী আটক

বরিশালের উজিরপুরে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা

এবার সড়কপথে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারণা

ঐক্যের সমাবেশে বিএনপি নেতারা

নাটোরে গ্রেনেড উদ্ধার

যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

বন্দুক তাক করে থাকলে বিদেশে গিয়ে লিখবেন ছাড়া কি গণভবনে বসে লিখবেন ?

রূপগঞ্জে বিল থেকে অজ্ঞাতনামা যুবকের লাশ উদ্ধার