ঠাঁই নেই বাসে-ট্রেনে

প্রথম পাতা

ফরিদ উদ্দিন আহমেদ | ১৫ জুন ২০১৮, শুক্রবার
নাড়ির টান মানুষকে আটকে রাখতে পারছে না। তাই ঘরমুখো মানুষ বাস, ট্রেন ও লঞ্চে ছুটছেন আপন মনে। ঘরমুখো যাত্রীদের আনন্দের গন্তব্য এখন শেকড়ে। বৃহস্পতিবার রাস্তায় রাস্তায় দেখা গেছে ব্যাপক জনস্রোত। এই স্রোত যেন বাঁধভাঙার মতোই। জনগণের স্রোত বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট আর রেলস্টেশনের দিকে।
ট্রেন, বাস, লঞ্চ ও বিমানে যে যেভাবে পারছেন বাড়ির দিকে ছুটছেন। এসব পরিবহনে তাই তিল পরিমাণ ঠাঁই নেই অবস্থা। পথে পথে রয়েছে হাজারো দুর্ভোগ। কিছু ট্রেনে শিডিউল বিপর্যয়ে যাত্রীদের ভোগান্তি বাড়িয়ে দেয়। মহানগরসহ কোথাও কোথাও ছিল যানজট। অনেক যাত্রীর সময়মতো টিকিট না পাওয়ারও অভিযোগ রয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অহরহ অভিযোগ করেছেন বহু যাত্রী। এমন আরো অনেক বাধা থাকার পরও বাড়ি ফিরছেন মানুষ। এক্ষেত্রে সড়ক, রেল, নৌপথের পাশাপাশি মানুষ ব্যবহার করছেন বিমানপথও। গতকাল সরকারি ও পোশাক শিল্পের কর্মীসহ বেসরকারি অফিসের কর্মীরা কোনো রকম হাজিরা দিয়েই বাড়ির দিকে রওয়ানা দিয়েছেন। এর আগে সরকারি অফিস বুধবার সরকারি ছুটি থাকায় কিছু চাকরিজীবী ঈদের ছুটির সঙ্গে বৃহস্পতিবার ছুটি নিয়ে আগেই ঢাকা ছেড়েছেন।

আজ থেকে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বন্ধ হওয়ার ফলে চিরচেনা এই শহর অনেকটা ফাঁকা হয়ে গেছে। এদিকে গতকাল রাজধানীর গাবতলী, সায়েদাবাদ, মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার বাস ছেড়ে যায় দেশের সব রুটে। মহাসড়কের কোথাও কোথাও খুবই ধীরগতিতে চলছিল যানবাহন। এ অবস্থায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছিল দূরপাল্লার যাত্রীদের। অন্যদিকে কমলাপুর এবং এয়ারপোর্ট স্টেশনে হাজার হাজার যাত্রী অপেক্ষার প্রহর গুনছেন বাড়িতে যাবার আশায়। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে, ট্রেনগুলোতে প্রচণ্ড ভিড়। ছাদে চড়ে ও দরজায় দাঁড়িয়ে ভোগান্তি মাথায় নিয়ে বাড়ি ফেরছেন মানুষ। ট্রেনের ভেতরে তিল ধারণের ঠাঁই নেই অবস্থা। বাধ্য হয়ে মানুষ প্রখর রৌদ্রের মধ্যে ট্রেনের ছাদে চড়ে পলিথিন মুড়িয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন। বেশি যাত্রী নিয়ে ট্রেনগুলোকে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যেতে হয়েছে। কারণ আসন কিংবা টিকিট না পাওয়া গেলেও ঈদে বাড়িতে যে যেতে হবে। ট্রেনের দরজায় ঝুলে, ছাদে উঠে অনেকে গন্তব্যে গেছেন। ভিড়ের কারণে কেউ কেউ চেষ্টা করেও ট্রেনে উঠতে পারেননি। আর টিকিট করে সিট পেলেও অনেকে সিট খুঁজে পাননি। স্টেশনে পুলিশ যাত্রীদের ছাদে উঠতে বাধা দিলেও কিছুক্ষণ পর পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে আবার ছাদে উঠেছেন ঘরমুখো মানুষ।
আর প্রতিদিনই শিডিউল বিপর্যয় হচ্ছিল। ঈদের বিশেষ ট্রেনের ক্ষেত্রে এ ঘটনা বেশি ঘটছে। ঈদ উপলক্ষে অগ্রিম টিকিট কাটা যাত্রীরা ১০ই জুন থেকে যাত্রা শুরু করেছেন। কিন্তু বুধবার থেকে বিভিন্ন ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় ঘটেছে। গতকাল সকালেও অনেক ট্রেনই নির্দিষ্ট সময়ের ২০ থেকে ৩০ মিনিট দেরি করে ছেড়ে গেছে। কমলাপুর স্টেশনের প্ল্যাটফরমগুলোর কোথাও ফাঁকা ছিল না, সবদিকে যাত্রী আর যাত্রী। স্টেশনে পৌঁছানোর পর যারা কাঙ্ক্ষিত ট্রেনের দেখা পেয়ে যাচ্ছেন তারা ছুটছেন গন্তব্যে, বাকিরা থাকছেন অপেক্ষায়। রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের ছাদে করে বাড়ি যাচ্ছিলেন মোতাছিন মিয়া। বললেন, এসে স্ট্যান্ডিং টিকিট কেটেছি, কিন্তু ট্রেনের ভেতরে এত মানুষ যে ঢোকার মতো পরিস্থিতি নেই। বাধ্য হয়ে ছাদে উঠেছেন তিনি। সকাল ৮টার নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি কমলাপুর ছেড়েছে বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে। ট্রেনটির জন্য অপেক্ষা করছিলেন আলমগীর সরদার। তিনি বলছিলেন নিজের ক্ষোভের কথা। এ ছাড়া বিলম্বে ছেড়েছে খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস, ধূমকেতু এক্সপ্রেস, রংপুর এক্সপ্রেস, একতা এক্সপ্রেস, লালমনি ঈদ স্পেশাল। ঈদযাত্রার সার্বিক বিষয় নিয়ে কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, সারা দিনে কমলাপুর থেকে ৬৯টি ট্রেন ছেড়ে যাবে। দুই-একটি ট্রেন বিলম্বিত হয়েছে। তিনি বলেন, অগ্রিম টিকিট বিক্রির দিনই আমরা ধারণা করতে পারছিলাম ১৪ই জুন উপচেপড়া ভিড় হবে। এরমধ্যেই চেষ্টা করছি শিডিউল ঠিক রাখতে। অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে যাওয়া-আসার সময় স্টেশনে ওঠানামা করতে যেখানে ২ মিনিট অপেক্ষা করার কথা সেখানে ৫/১০ মিনিট অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এ কারণে ট্রেনটি পৌঁছাতেও কিছুটা দেরি হচ্ছিল। তবে আমরা চেষ্টা করছি যেন সঠিক সময়েই সব ট্রেন ছেড়ে যেতে পারে।

এদিকে সকাল থেকেই সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ছিল গ্রামমুখী মানুষের উপচে পড়া ভিড়। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা আরো তীব্র আকার ধারণ করে। যাত্রী বেশি থাকায় লঞ্চগুলো তাড়াতাড়ি ঘাট ছেড়েছে। সিট পাওয়ার জন্য অনেকেই রাত কাটিয়েছেন টার্মিনালে। এমন একজন ভোলাগামী যাত্রী কাইয়ুম। তিনি থাকেন গাজীপুর। গত বুধবার রাতে এসে টার্মিনালে ঘুমান। কারণ হিসেবে বললেন, সিট না পেলে অনেক কষ্ট হয়। তার পক্ষে ১০০০ থেকে ১২০০ টাকার কেবিন নিয়ে বাড়ি ফেরা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, বাড়িতে যেতে কষ্ট হলেও গ্রামে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ অন্যরকম মজা। রাস্তায় সিএনজি ভাড়া দ্বিগুণ। বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী প্রায় সব লঞ্চের ছাদে যাত্রীদের দেখা গেছে। বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ জানায়, ঈদযাত্রায় বিশেষ করে নির্ধারিত সময়ে লঞ্চ ছেড়েছে। শুক্রবারও রুটিন মেনেই লঞ্চ ছাড়বে।

অন্যদিকে ভোর থেকে গাবতলী-মহাখালী বাস টার্মিনালে যাত্রীদের বেশ ভিড় ছিল। সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালের ইউনিক পরিবহনের কর্মকর্তারা বলেন, সকালে যাত্রীর বেশি চাপ ছিল। দুপুরে তেমন যাত্রী নেই। তবে রাতে চাপ বাড়বে। পর্যাপ্ত গাড়ি রয়েছে। সঠিক সময় ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছে গাড়িগুলো। তবে ঈদযাত্রায় মূল সমস্যা হয় মহাসড়কে যানজট থাকলে। তবে এবার মানুষ ট্রেনে বাড়ি ফেরার প্রবণতা অন্যান্য বছরের চেয়ে বেশি লক্ষ্য করা গেছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

চলে গেলেন কফি আনান

খাগড়াছড়িতে ব্রাশফায়ারে নিহত ৭

ছিনতাইকারীদের কল্যাণ তহবিল ৮ লাখ টাকা উদ্ধার

‘মত প্রকাশের জগৎ ছোট হলে গুজব ছড়ায়’

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ইমরানের শপথ

গুজব ছড়াতে ফারিয়া ধারণকৃত অডিও প্রচার করেছেন- র‌্যাব মহাপরিচালক

দুর্ভোগ সঙ্গী করেই বাড়ি ফিরছে মানুষ

দৃষ্টি হাসিনা-মোদি বৈঠকের দিকে

খালেদার সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাৎ

এইচএসসিতে ৩২৯১ জনের ফল পরিবর্তন

সড়ক নিরাপদ করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা

চলছে দর দাম বিক্রি কম

বিমানের প্রথম ড্রীম লাইনার আসছে কাল

‘বিএনপি না এলে, ৩০০ আসনে প্রার্থী দিয়ে নির্বাচন করব’

রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে ড. কামাল ও কাদের সিদ্দিকীর বৈঠক

বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের নামে ফেইক অ্যাকাউন্ট থেকে সতর্ক থাকার পরামর্শ