রাশিয়ান সুন্দরী এম্বাসেডরের সতর্কতা

খেলা

মানবজমিন ডেস্ক | ১৫ জুন ২০১৮, শুক্রবার
তীব্র আবেদনময়ী যুবতী ভিক্টোরিয়া লোপিরেয়া (৩৪)। বিশ্বকাপে রাশিয়ার এম্বাসেডর করা হয়েছে তাকে। তিনি রাশিয়ার টেলিভিশনের একজন উপস্থাপিকা। অভিনেত্রী। মডেল। ব্লগার। সুন্দরী প্রতিযোগিতায় টাইটেল হোল্ডার। ২০০৩ সালে মিস ইউনিভার্সের মুকুট উঠেছিল তার মাথায়।
সেই ভিক্টোরিয়া এবার রাশিয়া বিশ্বকাপে তার দেশের অফিসিয়াল এম্বাসেডরের দায়িত্ব পালন করছেন। মডেল হিসেবে বিশ্বক্যাত ম্যাগাজিন কসমোপলিটন, গালা, ফিউচার টেলিভিশন, এল’অফিসেল, বিউটি, বিউটি আরলিমিটেড, এনআরজি, ওকে! এবং হ্যালো!-এর প্রচ্ছদে এরই মধ্যে ঠাঁই পেয়েছেন। রাশিয়ায় মিস রাশিয়া প্রতিযোগিতায় বেশ কিছু সময়ের জন্য তিনি পালন করেছেন পরিচালকের দায়িত্ব। ২০০৬ সালে ইউক্রেনে অনুষ্ঠিত মিস ইউরোপ সুন্দরী প্রতিযোগিতা আয়োজন করেন। ২০০৮ সালে রাশিয়ান সংস্করণ ‘সারভাইভার, লাস্ট হিরো’তে তিনি অংশ নিয়েছেন। যেমন তিনি সুন্দরী, তেমনি শারীরিক গড়ন। তার রয়েছে মোহময়ী এক দৃষ্টিশক্তি। তিনি চোখের চাহনিতে কাবু করে ফেলতে পারেন হাজারো যুবক, পুরুষকে। তবে এবার তিনি রাশিয়া বিশ্বকাপে অন্য ভূমিকায়। এম্বাসেডর হিসেবে তাকে দেখা যাবে বিভিন্ন স্থানে। দেখা যাবে গোল নিয়ে কথা বলছেন। চ্যাম্পিয়নশিপ বিষয়েও জ্ঞান বিতরণ করবেন। খেলোয়াড়সুলভ ও স্বাস্থ্যসম্পন্ন জীবনধারা সম্পর্কে দেবেন নানা ধারণা। সবচেয়ে বড় কথা হলো, গতকাল বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগেই তিনি রাশিয়ার প্রতিপক্ষকে সতর্ক করে দিয়েছেন। বলেছেন, তারা মাঠে কাউকে ছেড়ে কথা বলবে না। গ্রুপ-এ তে তাতের প্রতিপক্ষ সৌদি আরব, মিশর ও উরুগুয়ে। বলা হচ্ছে, এবার বিশ্বকাপে রাশিয়া অনেক দুর্বল দল। কিন্তু ভিক্টোরিয়ার কন্ঠে তার লেশমাত্র নেই। তিনি লন্ডনের অনলাইন দ্য সান স্পোর্টসকে বলেছেন, রাশিয়া দল নিজেদের দেশে খেলার কারণে, নিজেদের মাঠে খেলার কারণে অবশ্যই বাড়তি সুবিধা পাবে। তার ভাষায়, আমাদের খেলোয়াড়দের আমরা সমর্থন করবো সারা মনপ্রাণ দিয়ে। এটা হবে রাশিয়ার জন্য এক বিরাট উৎসবের। এতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে ফুটবল এক অনিশ্চয়তার খেলা। রাশিয়ান খেলোয়াড়রা চমৎকার খেলা উপহার দেবে বলে আমি আস্থাশীল। এক্ষেত্রে আমাদের আছেন ম্যানেজার স্টানিস্লাভ চেরচেসভ। আশা করি রাশিয়া গ্রুপ পর্যায় উৎরে যাবে। তবে সময়ই বলে দেবে সব।
উল্লেখ্য, রাশিয়ার বিরুদ্ধে রয়েছেন কয়েকজন প্রখ্যাত খেলোয়াড়। তাদের শুধু খেলোয়াড় হিসেবে আখ্যায়িত করা হয় না। তাদেরকে বলা হয় গোল-মেশিন। এমন খেলোয়াড়ের কয়েকজন হলেন লুইস সুয়ারেজ, এডিনসন ক্যাভানি এবং মো সালাহ। তাদেরকে অতিক্রম করে রাশিয়া কতদূর এগুতে পারবে তা বলা কঠিন। ভিক্টোরিয়া লোপিরেয়ার মতে, রাশিয়ার গোলকিপার আকিনফিভ হলেন একজন কিংবদন্তি। তাকে পরাস্ত করতে হলে এসব গোলমেশিনকে অনেকটাই যুদ্ধ করতে হবে। ভিক্টোরিয়া লোপিরেয়া বলেন, আমি মনে করি আমাদের দলের সফলতার মূলে রয়েছেন গোলকিপার ইগর আকিনফিভ। তার দিকেই বেশির ভাগ মানুষের দৃষ্টি থাকবে।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিমানবন্দরে আত্মহত্যার চেষ্টা করা রুনা বললেন আমি মরতে চাই

দুর্নীতিবাজদের নিয়ে জোট করে সরকার উৎখাতের চেষ্টা হচ্ছে

সহস্রাধিক সাইট পেজে নজরদারি

সাধারণের ভোট ভাবনা

মেজর (অব.) মান্নানকে দুদকে তলব

ডিজিটাল আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার অন্তরায়

২৯শে সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের নাগরিক সমাবেশ

ঢাকায় বৃহস্পতিবার বিএনপি’র সমাবেশ

জগাখিচুড়ির ঐক্য টিকবে না

৫৭ ধারার মামলায় চবি শিক্ষক কারাগারে

পদ্মার ডান তীরে ভাঙন ফের আতঙ্ক

মালদ্বীপে বিরোধীদের অভাবনীয় জয়

চট্টগ্রামে গণধর্ষণের শিকার দুই কিশোরী

বিচারকের প্রতি দুই আসামির অনাস্থা

ভালো মানুষকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন: প্রেসিডেন্ট

শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে যাওয়ার কথা বলেননি ড. কামাল