জেল কোডের কোথাও নেই সরকারি হাসপাতালেই চিকিৎসা করাতে হবে: ফখরুল

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৩৬
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন- জেল কোডের কোথাও বলা নেই যে, সরকারি হাসপাতালেই চিকিৎসা করাতে হবে। গতকাল বুধবার রাজধানীর বিজয় নগরে একটি হোটেলে বাংলাদেশ লেবার পার্টির আয়োজনে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুস্থতা কামনায় ইফতার মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা সুনির্দিষ্টভাবে বলেছি, জেল কোডের কোথাও বলা নেই সরকারি হাসপাতালেই কোনো বন্দির চিকিৎসা করাতে হবে। প্রত্যেক রোগীরই চিকিৎসক পছন্দ করার স্বাধীনতা রয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠির মাধ্যমে জানানো হয়েছে চিকিৎসা ব্যয় বহন করা হবে। এক্ষেত্রে বিলম্ব করা মানে ধরে নেয়া হবে সরকারের গভীর ষড়যন্ত্র আছে। এ সময় অবিলম্বে খালেদা জিয়ার পছন্দ অনুযায়ী ইউনাইটেট হাসপাতালে চিকিৎসার দাবি জানান তিনি। মির্জা আলমগীর বলেন, আজ জনগণের ওপর চেপে বসা এই ভয়ংকর দানব সরকারকে সরাতে হবে।
তার জন্য জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে আমাদের গণতন্ত্র ও মানুষের অধিকার ফিরিয়ে আনতে হবে। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আমাদের বিজয়ী হতে হবে ইনশাআল্লাহ। দেশনেত্রীর মুক্তি ছাড়া এই দেশে কোনো কিছুই সম্ভব নয়। তাকে মুক্ত করতে হবে। একই সঙ্গে সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। আগামী জাতীয় নির্বাচনে সোনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। খালেদা জিয়ার জামিনের বিষয়ে তিনি বলেন, সমস্ত আইনগত বিষয়ে হাইকোর্ট থেকে জামিন পাওয়ার পরও খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়া হয়নি। কি করে খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া যায়, জনগণের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া যায় সেই চেষ্টা করছে সরকার। খালেদা জিয়া জনগণের নেত্রী। হাজারো চোষ্টা করেও তাকে জনগণ থেকে দূরে রাখা যাবে না। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তাকে মুক্ত করে আনা হবে। তিনি বলেন, খুন, গুম, অত্যাচার ও নির্যাতনের মধ্য দিয়ে একটি ভয়ংকর রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছে এই সরকার। আমরা জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করি। জনগণের শক্তি নিয়েই অতীতে নির্বাচনে জিতেছি। কারো দয়ায় আমরা নির্বাচনে জিততে চাই না, জিতি না। আমরা স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বে বিশ্বাস করি। আগামীতেও জনগণের শক্তি নিয়েই বিজয় ছিনিয়ে আনতে চাই।
লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে আরো উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি এমাজ উদ্দিন আহমদ, ভাইস-চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, এনাম আহমেদ চৌধুরী, আলতাব হোসেন চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু, বরকত উল্লাহ বুলু্‌, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার হায়দার আলী, সুকোমল বড়ুয়া, দৈনিক নয়া দিগন্তের সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দীন প্রমুখ। এ ছাড়া ২০ দলীয় জোট নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা আব্দুল হালীম, জাতীয় পার্টি (জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবীব লিঙ্কন, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মাদ ইব্রাহিম বীর প্রতীক, এনপিপির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মুসলিম লীগের মহাসচিব জুলফিকার বুলবুল, লেবার পার্টির মহাসচিব ফরিদ উদ্দীন আহমেদ প্রমুখ।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মহাঅষ্টমীতে কুমারী পূজা সম্পন্ন

পুলিশের ‘গায়েবি মামলা’ প্রবণতায় টিআইবি’র উদ্বেগ

সম্পাদক পরিষদের দাবির প্রতি পূর্ণ সমর্থন সাংবাদিক নেতাদের

পদত্যাগ করলেন এম জে আকবর

এইচটি ইমাম অসুস্থ, হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হয়েছে

ম্যান বুকার পেলেন আইরিশ লেখিকা আনা বার্নস

ইঁদুর গিলছে ধান!

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সংকুচিত হয়েছে

লাহোরে শিশু জয়নাবের ধর্ষক ও হত্যাকারীর ফাঁসি কার্যকর

বাহুবলে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ, যুবক আটক

তিতাসের ৫ কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত

বৈশ্বিক সক্ষমতায় পিছিয়ে বাংলাদেশ

পাকিস্তান চায় মার্কিন সেনারা আফগানিস্তানে থাকুক

ঢাবিতে 'গ' ইউনিটে ফেল করা পরীক্ষার্থী 'ঘ' ইউনিটে প্রথম

কুচকাওয়াজে হামলার মূল হোতাকে হত্যার দাবি ইরানের

‘সরকারের হুকুমে আরেকটি ফরমায়েসী রায়ের দিন ধার্য’