ফেনীতে দেয়াল ধসে নিহত ২

বাংলারজমিন

ফেনী প্রতিনিধি | ১৩ জুন ২০১৮, বুধবার
ফেনীতে নির্মাণাধীন একটি পাঁচ তলা ভবনের ছাদের দেয়ালের অংশ ভেঙে একজন নির্মাণ শ্রমিক ভবনের নিচের রাস্তায় থাকা অপর এক রিকশাচালকের ওপর পড়ে দুজনই নিহত হয়েছে। সোমবার বিকেলে শহরের দক্ষিণ সহদেবপুর মজুমদার বাড়িতে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। নিহতরা হলেন- কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের নির্মাণ শ্রমিক নিমাই চন্দ্র সরকার (৫৫) ও রংপুরের নেপাসছরা গ্রামের রিকশা চালক মো. এমদাদুল (৩০)। ফেনী সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রাশেদ খান চৌধুরী জানান, ফেনী শহরের দক্ষিণ সহদেবপুর মজুমদার বাড়ি এলাকায় জনৈক অশোক চন্দ্র তার তিন তলা বাড়ির উর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ করে পাঁচতলার ছাদও করেন। ছাদের ওপর দেয়ালের সাথে রাখা খোয়া (ইটের টুকরা) সরাতে গেলে হঠাৎ ছাদের দেয়ালের একাংশ ভেঙে নির্মান শ্রমিক নিমাই চন্দ্র নিচে পড়ে যান। এসময় ওই ভবনের পাশে নিচের সড়কে ছিল রিকশা চালক মো. এমদাদুল ছিলেন।
নির্মাণ শ্রমিক নিমাই চন্দ্র পাঁচতলা থেকে রিকশা চালকের গায়ের ওপর পড়ে। স্থানীয়রা আহত অবস্থায় দুজনকে ফেনী সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক নির্মাণ শ্রমিক নিতাই চন্দ্র সরকারকে মৃত ঘোষণা করেন। গুরুতর আহত রিকশা চালক মো. এমদাদুলকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে পাঠানো হয়। চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ড. কামাল-বি. চৌধুরীর বৈঠক

খাগড়াছড়িতে আধাবেলার সড়ক অবরোধ চলছে

ফেনিতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই যুবক নিহত

‘ঈদের দিন প্রেক্ষাগৃহে বসে দর্শকদের সঙ্গে ছবি দেখব’

পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে ১০ পশ্চিমা দূতের বৈঠক

বস্তিবাসীদের জন্য গড়ে তোলা হবে বহুতল ভবন: প্রধানমন্ত্রী

ট্রেনের শিডিউল লণ্ডভণ্ড, দুর্ভোগ

নওশাবার মুক্তি চেয়ে শিল্পী সংঘের বিনীত অনুরোধ

শহিদুল ও আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তি দাবি

অবশেষে ৪২ শিক্ষার্থীর জামিন, পরিবারে স্বস্তি

আলোর মুখ দেখছে সরকারি চাকরি আইন

কোটা আন্দোলনের নেতাদের পরিবারে কান্না

পবিত্র আরাফাত দিবসে আজ হজ

জমে উঠেছে পশুর হাট, বেড়েছে বিক্রি

অবরুদ্ধ করে মওদুদের গুরুত্ব কেন বাড়াবো

পুলিশ আমাকে বলেছে, বাড়ি থেকে যেন বের না হই