খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে ড্যাব নেতাদের উদ্বেগ

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১১ জুন ২০১৮, সোমবার, ১০:৪৪
কারাগারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিয়ে সরকার ও কারা কর্তৃপক্ষের আচরণে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ডক্টরস এসোসিশেন অব বাংলাদেশÑ ড্যাব। গতকাল এক বিবৃতিতে কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদের পক্ষে সভাপতি অধ্যাপক ডা. একেএম আজিজুল হক ও মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা শনিবার তাঁকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, তাঁর মাইল্ড স্ট্রোক হয়েছিল যা পরবর্তীতে মরাত্মক পরিণতির দিকে যেতে পারে। সৌভাগ্যবশত এ যাত্রায় তিনি মস্তিষ্ক, উরুসন্ধি ও মেরুদন্ডের ভয়ংকর আঘাত এবং মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের মত প্রাণনাশী জটিলতা থেকে সামান্যের জন্যে রক্ষা পেয়েছেন। তাই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে তাঁর জন্য সকল সুযোগ-সুবিধা সম্পন্ন ইউনাইটেড হাসপাতালে স্থানান্তরের জন্য বিশেষজ্ঞ মেডিকেল টিম লিখিত পত্র পেশ করেছেন। তারা বলেন, খালেদা জিয়া কোন সাধারণ ব্যক্তি নন।
তিনি বাংলাদেশের ৩ বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং গণতন্ত্রের ইতিহাস ও ভোটের রাজনীতিতে জনপ্রিয়তায় বিশ^ ইতিহাসে ক্রমাগত পরাজয়হীন সর্বোচ্চ ২৩টি আসনে বিজয়ের অনন্যদৃষ্টান্ত সৃষ্টিকারী। বাংলাদেশের গণমানুষের অবিসম্বাদিত নেত্রী ও দেশনেত্রী উপাধিপ্রাপ্ত খালেদা জিয়া গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় একজন অনন্য ও একনিষ্ঠ ব্যক্তিত্ব। ড্যাব নেতারা বলেন, পরিত্যক্ত ও যে কোন মানে বসবাসের অযোগ্য কনসানট্রেশন ক্যাম্পের সাথে তুলনীয় নির্জন কারাগারে তিনি যে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তাঁর প্রতি ইতোমধ্যে দেশ ও দেশের বাইরে বিশ^বাসীর দৃষ্টি আকর্ষিত হয়েছে। একে এক গভীর ও সুদূর প্রসারী রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র হিসাবে পরিগণিত করছে। খালেদা জিয়া দীর্ঘ দিন ধরে বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ। বয়সজনিত নানা রোগব্যাধিতে আক্রান্ত একজন বর্ষিয়ান নারীর এই নির্জন মানবেতর কারাবাস স্বাস্থ্য ও স্বাভাবিক জীবন-যাপনের জন্য কতটা ক্ষতিকারক হতে পারে তা শুরু থেকেই সাধারণ মানুষকেও গভীরভাবে ভাবিয়ে তুলেছিল। খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস, উচ্চ-রক্তচাপ, ¯œায়ু বৈকল্য, কিডনী ও মুত্রথলির সংক্রমন, হাঁটু ও সন্ধির প্রদাহসহ নানা রোগের যে একান্ত পরিচর্যা প্রয়োজন ছিল। কিন্তু নির্জন, সূর্যালোকহীন, স্যাঁতসে্যঁতে পরিত্যক্ত, পোকা-মাকড় বিচরিত কারাগারে এই ধরণের একজন বিশেষ পরিচর্যা সাপেক্ষ রোগীর সেবা প্রদান একরকম অসম্ভব। চিকিৎসকরা বলেন, কারা কর্তৃপক্ষ ও সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে যথাযথ গুরুত্ব আরোপ না করে গা-ছাড়া আচরন প্রদর্শন করে আসছেন যা অবহেলার শামিল হয়ে উঠেছে। চিকিৎসা ও যথাযথ পরিচর্যার অভাবে এমন একজন গুরুতর অসুস্থ রোগীর সাধারণ পরিণতিতে যা হবার বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। গত ৫ জুন মঙ্গলবার তিনি প্রায় তিন সপ্তাহ জ¦রে ভোগা অবস্থায় হঠাৎ করে জ্ঞান হারান ও মাটিতে পড়ে যান। তাঁর অন্যান্য রোগ-উপসর্গেরও অবনতি ঘটেছে। তিনি প্রবল ব্যথা ও ভারসাম্যহীনতা আক্রান্ত হয়ে ক্রমশঃ চলৎ-শক্তি হারিয়ে ফেলছেন। আমরা আশা করি সরকার বিষয়টিতে সচেতন হবেন এবং অনতিবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। অন্যথায় এর দায়-দায়িত্ব বর্তমান সরকারকেই বহন করতে হবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

নকআউট পর্বে রাশিয়া-উরুগুয়ে

সেই রাশিয়ান সুন্দরী একজন পর্ন তারকা

দ্বিতীয় রাউন্ডে উরুগুয়ে, সৌদি আরবের বিদায়

আর্জেন্টিনার টিকে থাকার লড়াই

অক্টোবরে গঠিত হতে পারে নির্বাচনকালীন সরকার

নির্দলীয় সরকারের দাবি বিরোধী নেতাদের

বাংলাদেশি সমর্থকদের জন্য মেসির ভিডিও বার্তা

এত সমর্থক দুনিয়ার কোথাও দেখিনি

অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগে উত্তপ্ত গাজীপুর

মাদক ব্যবসার পৃষ্ঠপোষকদের সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে আইন হচ্ছে

দলের মনোনয়ন চান আরিফ ও কামরান

চীনের কে-৮ ডব্লিউ জেট ট্রেইনার বিমান কিনছে বাংলাদেশ

ময়মনসিংহে যুবলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ

অনশনে যাচ্ছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা

এমপি’র স্ত্রীর গাড়িচাপায় পথচারী নিহত

নতুন করে প্লাবিত হচ্ছে হাওর অঞ্চল