শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচিতে বাধা, দুই নেতাকে ধরে নেয়ার অভিযোগ

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১০ জুন ২০১৮, রোববার, ১:১৫
এমপিওভুক্তির দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-কর্মচারীরা লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি শুরু করতে চাইলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। আজ সকাল থেকেই জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই কর্মসূচি শুরুর কথা ছিল। নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মাহমুদুন্নবী ও সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায়কে পুলিশ আটক করে নিয়ে গেছে বলে আন্দোলনকারীরা অভিযোগ করেছেন। এ অবস্থায় তাঁরা এখন প্রেসক্লাবের রাস্তার উত্তর দিকে বিক্ষিপ্তভাবে অবস্থান নিয়েছেন।  সংগঠনটির সহসভাপতি শফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, সকাল নয়টার পর থেকে তাঁরা প্রেসক্লাবের সামনে কর্মসূচির পালনের জন্য আসতে থাকেন। কিন্তু পুলিশ সেখানে তাঁদের বসতে বাধা দেয়। তাঁদের সরিয়ে দেয়।
এর মধ্যেই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে পুলিশ নিয়ে যায়। শফিকুল ইসলাম বলেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের আন্দোলন চলবে।
উল্লেখ্য, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির দাবিতে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের ডাকে গত ২৬শে ডিসেম্বর থেকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে প্রথম অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন কয়েক হাজার শিক্ষক-কর্মচারী। ৩১শে ডিসেম্বর থেকে তীব্র শীতের মধ্যে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করেন।  কর্মসূচি পালনকালে গত ২ই জানুয়ারি হঠাৎ সেখানে গিয়ে হাজির হন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আন্দোলনরত শিক্ষক নেতাদের পাশে দাঁড়িয়ে মন্ত্রী বলেন, গত রাতে আমি অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। অনেক চেষ্টার পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছ থেকে সম্মতি আদায় করতে পেরেছি। তিনি সম্মতি দিয়েছেন, এমপিওভুক্ত যারা হননি তাদের এমপিও ব্যবস্থা করা হবে। এটা আমাদের বিজয়, প্রথম স্বীকৃতি। শিক্ষামন্ত্রী তখন আরও বলেছিলেন, আমি কথা দিচ্ছি এমপিওভুক্তির দাবি পূরণ করে দেব। টাকা, পয়সা, অর্থের ব্যাপার আছে। অর্থমন্ত্রী রাজি হয়েছেন, আমরা কাজ এগিয়ে রেখেছি। নীতিমালা করে দিয়ে বলেছি-এটা দিলাম, আপনারা দেখেন। আপনারা (শিক্ষক) শিক্ষা পরিবারের সদস্য, আমি একজন কর্মী। আপনারা খুবই কষ্ট করছেন, দুঃখিত। আপনারা কয়েক দিন ধরে এখানে আছেন। শিক্ষকরা আমাদের মাথার মনি, সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ শক্তি, নিয়ামক শক্তি। শিক্ষকদের প্রতি অবেহলা কেউ গ্রহণ করে না।
শিক্ষামন্ত্রীর ওপর আস্থা না রেখে শিক্ষকরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। পরে ৫ই জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ সাজ্জাদুল হাসান ও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে দাবি পূরণের আশ্বাস দেন। ওই দিনই শিক্ষকরা আন্দোলন স্থগিত করে বাড়ি ফিরে যান। এমপিও ছাড় করতে অর্থ বরাদ্দ দিতে অর্থমন্ত্রীর আশ^াসের পরই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তার এমপিও ছাড়ের নীতিমালা করে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠান। অর্থ মন্ত্রণালয় নীতিমালা অনুমোদন দিলেও প্রস্তাবিত বাজেটে এখাতে কোনো বরাদ্দ রাখেনি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

আমীর খসরুকে দুদকে তলব

কোন প্রহসনের নির্বাচনে যাব না: নজরুল

১১ সিটিতে কোরবানির নির্ধারিত স্থান ২৯৫৪

চলে গেলেন বাজপেয়ী

সাইবার হামলার আশঙ্কায় দেশের সব ব্যাংকে সতর্কতা জারি

যেসব ছবির মাধ্যমে আলোড়ন তোলেন শহিদুল আলম

কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেত্রী লুমা ৩ দিনের রিমান্ডে

পাকিস্তানে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন শুক্রবার

স্ত্রী সন্তানের সঙ্গে ঈদ করা হলো না প্রবাসী নাছিরের

‘ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে জাতীয় নির্বাচন’

সুপ্রিমকোর্টে দেড় মাসের ছুটি

প্রশ্নপত্র ফাঁস: জনতা ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা নতুন করে নেয়ার নির্দেশ

মানুষবাহী মহাকাশযানের ঘোষণা দিলেন মোদী

সরকার হটানোর চক্রান্ত চলছে, ওয়ান-ইলেভেনের গন্ধ পাচ্ছি

পেট্রোবাংলার ৭ কর্মকর্তাকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

র‌্যাবের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ বনদস্যু নিহত, অপহৃত ২৩ জেলে উদ্ধার