বিশ্বনাথে ধর্ষণের ঘটনায় আপস!

শেষের পাতা

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি | ২৬ মে ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৩৫
সিলেটের বিশ্বনাথে ধর্ষিত হওয়া এক কিশোরীর পরিবারকে দুই লাখ টাকা দিয়ে ধর্ষণের ঘটনা আপসে নিষ্পত্তি করেছেন কথিত মাতুব্বররা। এর ফলে জামিনে জেল থেকে বের হয়ে বিদেশে চম্পট দিয়েছে ধর্ষক। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের কাদিপুর গ্রামে। এ ঘটনায় উপজেলাজুড়ে চলছে তোলপাড়। জানা গেছে, গত ১৪ই এপ্রিল কাদিপুর গ্রামের দুবাই প্রবাসী আছর আলী ওরফে আফছর একই গ্রামের দিনমজুর তাহির আলীর ১৫ বছর বয়সী কিশোরীকে একা ঘরে পেয়ে সম্ভ্রম লুট করে। ঘটনাটি স্থানীয় মাতুব্বররা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন। কিনু্ত থানা পুলিশ ঘটনাটি জানতে পেরে ওইদিন রাতে আফছরকে আটক করে এবং ভিকটিমকে থানায় নিয়ে আসে। কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে রাতেই অভিযোগ দায়ের করেন।
আফছরকে ছাড়িয়ে নিতে থানার দালালেরা শুরু করে নানা তদবির। তারা জনৈক পুলিশ কর্মকর্তার উপস্থিতিতে কিশোরীর ইজ্জতের মূল্য দেড় লাখ টাকা নির্ধারণ করে ঘটনাটি নিষ্পত্তির জন্যে তার পিতাকে সম্মত করেন। তবে, এর আগেই ঘটনার সংবাদ বিভিন্ন অনলাইনে ছড়িয়ে পড়লে বিপাকে পড়ে যায় পুলিশ ও দালালেরা। বাধ্য হয়ে ১৮ই এপ্রিল কিশোরীর পিতার অভিযোগ মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়। এরপর আফছরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। কিশোরীকে পাঠানো হয় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে।
একটি সূত্র জানায়, সম্প্রতি আফছরের মামা লন্ডনপ্রবাসী আইয়ুব আলী দেশে ফিরে তার ভাতিজা নুরুল ইসলাম, একই গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী রফিক মিয়া, শ্রীধরপুর গ্রামের শাহজাহান সিরাজ, ইলামেরগাঁও গ্রামের আমিন উল্লাহ ও স্থানীয় ইউপি সদস্য নাছির উদ্দিনের মাধ্যমে আফছরের পরিবারের কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা নিয়ে কিশোরীর পরিবারকে ২ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি নিষ্পত্তি করেন। এরপর গত ১৫ মে জামিনে মুক্ত হয়ে এক সপ্তাহ পরেই দুবাইয়ে চম্পট দেয় ধর্ষক আফছর। আপোসের বাকি তিন লাখ টাকা জামিনসহ মাতুব্বরদের মধ্যে ভাগ-বাটোয়ারা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
গতকাল বিকালে স্থানীয় সাংবাদিকেরা সরজমিন কিশোরীর বাড়িতে গেলে তার পিতা তাহির আলী ও সৎমা ৫ লাখ টাকায় ঘটনাটি নিষ্পত্তির বিষয়টি অস্বীকার করেন। তারা বলেন, আফছরের মামা লন্ডনপ্রবাসী আইয়ূব আলী কিশোরীকে নিজের টাকায় অন্যত্র বিয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়ায় তারা আপসে সম্মত হন। তবে, কিশোরীর দাদী কাচা বেগম সাংবাদিকদের কাছে দুইলাখ টাকা পেয়েছেন বলে স্বীকার করেন। এ সময় কথা হলে সম্ভ্রম হারানো কিশোরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি টাকা চাই না, যে আমার জীবন নষ্ট করেছে আমি তাকে চাই।’
আফছরের চাচাতো ভাই নুরুল ইসলাম বলেন, আমার চাচা আইয়ূব আলী কিভাবে বিষয়টি নিষ্পত্তি করেছেন তা তিনি জানেন। এ ব্যাপারে আমার কিছুই জানা নেই।
স্থানীয় ইউপি সদস্য নাছির উদ্দিন বলেন, কিভাবে বিষয়টি নিস্পত্তি হয়েছে আমি তা জানি না। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমাকে রফিক মিয়া (আফছরের মামা) বলেছেন, আদালতে একটি কাগজ দিতে হবে। আর সেই কাগজে আমার স্বাক্ষর লাগবে। তাই আমি স্বাক্ষর দিয়েছি।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বিশ্বনাথ থানার এসআই মিজানুর রহমান বলেন, মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে। তদন্ত শেষে আদালতে মামলার চার্জশিট দেয়া হবে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এমন নির্বাচন হওয়া উচিত যাতে বৈধতার সংকট থেকে শাসনব্যবস্থা মুক্ত হয়

সেপ্টেম্বরে খাসোগি হত্যার নীলনকশা তৈরি হয়

খালেদা জিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চায় দুদক

মানহানির মামলায় মইনুল হোসেন কারাগারে

মইনুলকে গ্রেপ্তার জরুরি ছিল- কাদের

ঢাবি’র ‘ঘ’ ইউনিটের উত্তীর্ণদের নিয়ে আবার পরীক্ষা

সরকারের সাম্প্রতিক পদক্ষেপে ড. কামালের উদ্বেগ

সেলিম ওসমানকে অব্যাহতি

কোটা আন্দোলনের চার নেতাকে ছাত্রলীগের মারধর

জয়-পরাজয়ে অন্তরায় কোন্দল

পার্বত্য অঞ্চলের শান্তিতে হুমকি ৯৬৯-এর তৎপরতা

সিলেটে রাতে ধরপাকড়ের অভিযোগ

সিলেটে মাজার জিয়ারতে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা ( ভিডিও)

এবার মোবাইল অ্যাপ দেবে অ্যাম্বুলেন্সের সন্ধান

মধ্যরাতে তরুণীর সঙ্গে পুলিশের অশোভন আচরণ ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ

সৌদিতে ‘যৌনদাসী’ হিসেবে বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশি নারীরা