সরাইলে বৃদ্ধ খুন

বাংলারজমিন

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি | ১৭ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার
ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বৃদ্ধ আবদুল খালেক (৫৫)। বাড়ি উপজেলার পল্লী এলাকা পাকশিমুলের ব্রাহ্মণগাঁও গ্রামে। অনেক কষ্টে বড় ছেলে শাহ আলমকে পাঠিয়েছেন প্রবাসে। সংসারের কষ্ট দূর করতে আরেক ছেলে শফিক আলমকে (২৪) বিদেশ পাঠানোর স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন ৩ বছর আগে। ছেলেকে বিদেশ পাঠাতে আপন চাচাত ভাই আবদুল কুদ্দুছের (৬০) সহায়তা নেন। কুদ্দুছের ভাগ্নির জামাতা চুন্টার পালপাড়ার মকবুল থাকেন মালদ্বীপে। কুদ্দুছের মাধ্যমে শফিককে মালদ্বীপ নেয়ার জন্য মকবুলকে টাকা দেন খালেক। দুই বছর হলো।
শফিককে বিদেশ নিচ্ছেন না। টাকাও ফেরৎ দিচ্ছেন না। শুধু তারিখ দিয়ে ঘুরাচ্ছেন। একাধিক সালিশ হয়েছে। হয়েছে মামলাও। এ ঘটনার জের ধরেই গত মঙ্গলবার বিকেলে আবদুল কুদ্দুছ ও খালেকের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে মারধরের ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় জেলা সদর হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় খালেক মারা যায়। ছেলেকে বিদেশ পাঠানোর স্বপ্ন অপূরণীয়ই থেকে গেল খালেকের। গতকাল পুলিশ কুদ্দুছের স্ত্রী আনোয়ারা বেগমকে (৫৪) গ্রেপ্তার করেছে। সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিদেশ পাঠানোর টাকা ও জায়গা জমির বিরোধে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মামলা মোকদ্দমা চলে আসছিল।
গত মঙ্গলবার বিকেলে ২ পরিবারের মারামারির ঘটনায় আহত খালেক জেলা সদর হাসপাতালে মারা গেছেন। ময়না তদন্তের পক্রিয়া চলছে। এখনো মামলা হয়নি।    



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এবার বহিষ্কার হচ্ছেন বি চৌধুরী!

ইসির বৈঠকে কূটনীতিকদের উদ্বেগ আসছেন ইইউ’র দুই বিশেষজ্ঞ

বিদায় রুপালি গিটারের ফেরিওয়ালা

তিনদিনে ডিজিটাল আইনে ১৬ মামলার আবেদন

সিলেটে সমাবেশের অনুমতি মিলেনি

জনমতের প্রকৃত প্রতিফলন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

আওয়ামী লীগ মাহবুব তালুকদারের পদত্যাগ চায় না

মহানবীর রওজা জিয়ারত করলেন প্রধানমন্ত্রী

সাড়ে ১৭ হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য ঘাটতি

আওয়ামী লীগে স্বস্তি বিএনপিতে টানাপড়েন

আঞ্জু জানেন না স্বামী বেঁচে নেই

শেষ কলামেও গণমাধ্যমের স্বাধীনতার কথা লিখেছেন খাসোগি

সিলেটে চেয়ারম্যানপুত্রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

ঢাকায় আকবরের নেটওয়ার্ক

এমপি রানার জামিন নামঞ্জুর

এরশাদের দিকে তাকিয়ে নেতাকর্মীরা