বাহুবলে তরুণীকে গণধর্ষণের পর সিগারেটের ছ্যাঁকা

প্রথম পাতা

বাহুবল (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি | ২৬ এপ্রিল ২০১৮, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০০
বাহুবলে বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে এসে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন নারায়ণগঞ্জের এক তরুণী। ধর্ষকরা শুধু ধর্ষণ করেই ক্ষান্ত হয়নি ওই তরুণীর শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়েছে। ঘটনার পর স্থানীয় লোকজনের   সহায়তায় ধর্ষিতা হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। এ ব্যাপারে ২৪শে এপ্রিল রাতে বাহুবল মডেল থানায় ৪ যুবকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। পুলিশ উপজেলা পরিষদের এমএলএসএস শাহ আলমসহ ২ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। অপর ২ যুবক পলাতক রয়েছে। গণধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে ২৩শে এপ্রিল রাত সোয়া ১টার দিকে উপজেলার পূর্ব জয়পুর গ্রামে।
ধর্ষিতার উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ জানায়, নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জ উপজেলার দিঘিবরাবর গ্রামের জনৈক তরুণী  তার স্বামীর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় ৫ বছর ধরে পিত্রালয়ে বসবাস করে আসছে। ৪ বছর আগে নারায়ণগঞ্জের একটি গার্মেন্টসে চাকরি নেয়।  সে সুবাদে বাহুবল উপজেলার পূর্ব জয়পুর গ্রামের এমরান মিয়ার স্ত্রী লিপি খানমের সঙ্গে ওই তরুণীর পরিচয় হয়।
সপ্তাহখানেক আগে ওই তরুণীকে বাহুবল বেড়াতে আসার দাওয়াত দেয় লিপি। গত ২৩শে এপ্রিল বাহুবল উপজেলার মিরপুর বাজারে নামেন ওই তরুণী। মিরপুর বাজারে পূর্ব থেকেই অবস্থান করছিল বান্ধবী লিপি খানম। দুজন হয়ে মিরপুর বাজারে কিছু বাজার-সওদা সেরে বাজার থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরবর্তী পূর্বজয়পুর গ্রামে তারা যাত্রা করেন। লিপি খানমের বাড়িতে পৌঁছে লিপির স্বামী এমরান মিয়া (৩৫), একই গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের পুত্র ছায়েদ আলী (৪৫) ও মো. তৈয়ব খানের পুত্র বাহুবল উপজেলা পরিষদের এমএলএসএস মো. আলম খান (২৫)-এর সঙ্গে দেখা ও কথাবার্তা হয় ওই তরুণীর। খাওয়া-দাওয়া শেষে লিপি খানমের একটি কক্ষে ওই নারী ঘুমিয়ে পড়েন। রাত অনুমান সোয়া ১টার দিকে এমরান মিয়া, ছায়েদ আলী, আলম খান ও এক অজ্ঞাত যুবক ঘুমন্ত ওই তরুণীর কক্ষে প্রবেশ করে। এ সময় তারা তাকে জাপটে ধরে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে ছায়েদ আলী জ্বলন্ত সিগারেট দিয়ে ধর্ষিতার পেটের নিম্নাংশে ছ্যাঁকা দেয় এবং অন্যরা তার মুখমণ্ডল ও গলায় জখম করে। এতে ওই নারী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করে। সেখানে তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়ার পর ২৪শে এপ্রিল রাতে ধর্ষিতা বাদী হয়ে বাহুবল মডেল থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামি ছায়েদ আলী ও মো. আলম খানকে গ্রেপ্তার করে। অন্যরা পলাতক রয়েছে।
গতকাল অপরাহ্ণে বাহুবল মডেল থানা কম্পাউন্ডে এক সংক্ষিপ্ত ব্রিফিং-এ বাহুবল সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এএসপি পারভেজ আলম চৌধুরী বলেন, গণধর্ষণের বিষয়টি অবগত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের ‘কুইক রেসপন্স’ টিম মাঠে নামাই এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে ২ ধর্ষককে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হই। গ্রেপ্তারকৃতরা ঘটনার বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারে জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

debabrata majumder

২০১৮-০৪-২৫ ১৮:১৩:২১

ওদের এমন শাস্তি দিন যাতে এদেশের মাটিতে পরবর্তিতে এধরনের জঘন্য কাজ করার আগে আতকে উঠবে।

আপনার মতামত দিন

দেশের স্বার্থে নতুন মেরূকরণ হতে পারে

এমপিদের লাগাম টানছে না ইসি

স্টিয়ারিং কমিটিতে যারা থাকছেন

এনডিআই-এর নির্বাচনী ২০ দফা

সিলেটে একদিন পিছিয়েও সমাবেশের অনুমতি পায়নি ঐক্যফ্রন্ট

জাপার দুর্গে আওয়ামী লীগের দৃষ্টি

শিক্ষকদের সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

সৌদি আরবে শঙ্কায় লাখ লাখ বাংলাদেশি শ্রমিক

তিন জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৪

তিনদিনের সফরে ঢাকায় এলিস ওয়েলস

টাঙ্গাইলে দীপু মনির জনসভা বাতিল, উত্তেজনা

খাসোগি হত্যার দায় স্বীকার সৌদির

ল্যান্ডমার্ক ম্যাচে মাশরাফিদের অন্য ‘লড়াই’

জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট ঘোষণা

‘ক্ষমতায় গেলে ৭ দিনের মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল’

‘ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই’