কলকাতা ছাড়ার আগেই শামিকে আদালতের তলব

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১৭ এপ্রিল ২০১৮, মঙ্গলবার
চলতি ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) দিল্লি ডেয়াডেভিলসের হয়ে খেলেন পেসার মোহাম্মদ শামি। গতকাল কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে ম্যাচ খেলতে কলকাতায় আসেন তিনি। আর খেলতে এসেই বিপাকে পড়ে গেলেন এ ভারতীয় পেসার। সোমবার ইডেন গার্ডেনে ম্যাচের পর আজ সকালে শামির কাছে পৌঁছে লালবাজার আদালতের বার্তা। বুধবার দুপুর দুইটার মধ্যে লালবাজারের আদালতে তাকে হাজিরার নির্দেশ দেয় কলকাতা পুলিশ। গত কয়েক সপ্তাহ আগে শামির বিরুদ্ধে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক, নির্যাতন, ধর্ষণ, খুনের চেষ্টা এমনকী ম্যাচ গড়াপেটাসহ একাধিক অভিযোগ তুলে আদালতে মামলা করেন তার স্ত্রী হাসিন জাহান। পরে ম্যাচ গড়াপেটার অভিযোগে শামির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের তদন্তে নামে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। যদিও বোর্ডের তদন্তে নির্দোষ প্রমাণিত হন তিনি।
কিন্তু এই সময়ে কলকাতায় ছিলেন না এ ভারতীয় পেসার। পরে দুর্ঘটনায় আহত শামিকে দেখতে দিল্লি গিয়েছিলেন হাসিন। মেয়ের সঙ্গে দেখা করলেও হাসিনের সঙ্গে কথা বলেননি শামি। আইপিএলের সফরসূচির মধ্যেই এবার তাকে তলব করা হল লালবাজারে। নির্যাতন, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক-সহ স্ত্রী হাসিন জাহানের একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে শামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে কলকাতার গোয়েন্দা পুলিশ। এদিকে শামির দাদা হাসিব আহমেদকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বুধবার দুপুরে ডেকে পাঠিয়েছে আদালত। ১৪ এপ্রিল হাসিবকে ডাকা হলেও কয়েকদিন সময় চেয়ে নেন শামির দাদা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সুপ্রভাত ও জাবালে নূর বন্ধের বিজ্ঞাপন

নিউজিল্যান্ডের একটি স্কুলে হিজাব নিষিদ্ধ নিয়ে বিতর্ক

মন্ত্রী পর্যায়ের ফোরাম এবং ‘দক্ষিণ-দক্ষিণ জ্ঞান ও উদ্ভাবনী কেন্দ্র’ প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব বাংলাদেশের

কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১১ মামলার আসামি নিহত

সিরাজগঞ্জে কাভার্ডভ্যান চাপায় কলেজছাত্র নিহত

রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তি নিহত

দক্ষিণ কোরিয়ার হোটেলে গোপন ক্যামেরা

সব ধরনের সামরিক কায়দার অস্ত্র নিষিদ্ধ করবে নিউজিল্যান্ড, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা

‘এখন আমি নেগেটিভ চরিত্র বেশ উপভোগ করি’

৩ বাংলাদেশির লাশ আসতে সময় লাগবে

অ্যাকশন দেখতে চান শিক্ষার্থীরা

যশোরে পিকআপের চাপায় স্কুলছাত্রীর পা বিচ্ছিন্ন

ইউরোপজুড়ে আন্দোলনে স্কুল শিক্ষার্থীরা

আরেক তরুণীকেও ধাক্কা দেয় সেই বাস

মেইল-ফেসবুক আইডি হ্যাকের ভয়ঙ্কর চক্র

ছাত্রদলের কেন এই পরিণতি?