পশ্চিমবঙ্গে আচমকা পঞ্চায়েত নির্বাচনের নির্ঘন্ট ঘোষণায় বিরোধীরা দিশেহারা

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১ এপ্রিল ২০১৮, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ২:৩৯
মাত্র তিন দিন আগে ডাকা সর্বদল বৈঠকে রাজ্যের নির্বাচন কমিশনার তিনস্তরের পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন তারিখের কোনও ইঙ্গিত দিতে পারেন নি। অথচ শনিবার নির্বাচন কমিশনার তড়িঘড়ি নির্বাচনের নির্ঘন্ট ঘোষণা করেছেন। আর এই আচমকা ঘোষণায় বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি প্রকৃতপক্ষে দিশেহারা অবস্থা। তারা আশা করেছিলেন, নির্বাচনের আগে আরও কিছুটা সময় পাওয়া যাবে। সর্বদল বৈঠকে মে মাসে নির্বাচন করা নিয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়েছিলেন। গোটা এপ্রিল মাস জুড়ে চলবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা।  কিন্তু নির্বাচন কমিশন যে নির্ঘন্ট ঘোষণা করেছে তাতে মে মাসের শুরুতেই তিন দফায় ভোট হবে।
প্রতিটি দফার ক্ষেত্রে ব্যবধান রাখা হয়েছে মাত্র একদিন। আগামী ১লা মে ভোট নেওয়া হবে রাজ্যের ১২ জেলায়। দ্বিতীয দফায় ৩ মে ভোট হবে দুটি জেলায়। আর ৫ই মে তৃতীয দফায় ভোট হবে উত্তরবঙ্গের ৬টি জেলায়। ফল ঘোষনা করা হবে ৮ই মে। অথচ বতৃমা পঞ্চায়েতের বিভিন্ন বোর্ডের মেয়াদ রয়েছে আগষ্ট পর্যন্ত। বিরোধীদের অভিযোগ রাজ্য সরকারের বশ্যতা স্বীকার করে নির্বাচন কমিশনার অমরেন্দ্র কুমার সিং এই নির্ঘন্ট ঘোষণা করেছেন। এমনকি বিরোধীদের দাবি মেনে এই নির্বাচনের জন্য কেন্দ্রীয বাহিনী থাকবে কিনা সেকথাও নির্বাচন কমিশনার জানাতে অস্বীকার করেছেন। তবে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে রাজ্য সরকারের কাছে ৩ লক্ষ ভোটকর্মী, ৩৫০ জন পর্যবেক্ষক ও ৪৫ হাজার পুলিশ চেয়েছে। নজিরবিহীনভাবে এবারই প্রথম ১লা  মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হওয়া সত্ত্বেও সেদিন নির্বাচন করা হচ্ছে। বিভিন্ন শ্রমিক ইউনিয়নগুলি এ ব্যাপারে তীব্র আপত্তি জানিয়েছে।  বিজেপি থেকে সিপিএম, কংগ্রেস সকলেই অভিযোগ করেছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথাতেই এখন নির্বাচন কমিশন চলছে। তাই এভাবে বিরোধীদের আপত্তি উড়িয়ে ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করা হযেছে। তবে পঞ্চায়েত নির্বাচনের নির্ঘন্ট ঘোষণার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কাজে হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়। আমরা তা করি না। তিনি আরও বলেছেন, গণতন্ত্র রক্ষা গণতন্ত্র দিয়েই হয়। স্বৈরতন্ত্র দিয়ে হয় না। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হোক এটাই চাই। কিন্তু রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল তড়িঘড়ি নির্বাচনের ঘোষণাকে রাজ্যের শাসক দলের রাজনৈতিক কৌশল হিসেবেই দেখছেন। রাজ্য সরকারের সুপারিশের ভিত্তিতেই নির্বাচনের ঘোষনা হয়েছে। একটি সুত্রের খবর, রাজ্য সরকার মুসলমানদের রমজান মাস শুরুর আগেই নির্বাচন শেষ করতে চেয়েছেন বলেই মে মাসের শুরুতেই নির্ঘন্ট ঘোষণার সুপারিশ করেছে। রাজনৈতিক ওয়াকিবহাল মহলের মতে, এত অল্প সময়ের মধ্যে নির্বাচনের ঘোষণার ফলে বিরোধীরা সব আসনে প্রার্থী দিতে পারবে কিনা সে ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। এই নির্বাচনে ৫ কোটি ৮ লক্ষ ভোটার ২০টি জেলার ৫৮ হাজার ৪৬৭টি বুথে ভোট দেবেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সিলেটে ৫ দশমিক ২ মাত্রার ভূমিকম্পন অনুভূত

তিস্তা নিয়ে মমতার সঙ্গে বৈঠকে বসবে আওয়ামী লীগ

নিহত শ্রমিকদের স্মরণ

ইনটেনসিভ কেয়ারে সিনিয়র বুশ

‘কাজের শিল্পীর চাইতে আমাদের বক্তব্যনির্ভর শিল্পীর সংখ্যা বেশি’

দাফনের আগে নড়ে ওঠা নবজাতকটি আর নেই

কানাডায় ফুটপাতের ওপর ভ্যান উঠিয়ে ১০ জনকে হত্যা

রুয়েটের বাস চালককে কুপিয়ে হত্যা

পুলিশি বাধায় পণ্ড বিএনপির বিক্ষোভ

প্লট পাচ্ছেন ৯৯ এমপি

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে তারেক রহমানের লিগ্যাল নোটিশ

তারেক বৃটিশ সরকারের কাছে পাসপোর্ট সমর্পণ করেছেন- পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

ওদের এখনো দুর্বিষহ জীবন

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

বিচার কত দূর?

সেনাবাহিনী ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়