দুদককে রাতকানা বাদুর বললেন রিজভী

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২১ মার্চ ২০১৮, বুধবার, ১২:১০
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, দুদক হল রাতকানা বাদুরের মতো। সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা মন্ত্রিত্ব করছেন। তখন তার চোখ কানা হয়ে যায়। আজ বুধবার নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। রিজভী আহমেদ বলেন, দুইজন মন্ত্রী সাজাপ্রাপ্ত। রাতকানা বাদুর এইজন্যই বলছি। সারাদেশে সরকারি অর্থ লুট হচ্ছে। সোনালী ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, পদ্মা সেতুতে লুট হচ্ছে।
সেখানে দুদক কিছু দেখছেননা। অথচ বিএনপির বেলায় তারা রাতকানা বাদুরের মতো আচরণ করছেন। যে অন্ধ, যে কানা সে কখনো অপরের স্বচ্ছতা দেখতে পায় না। তিনি বলেন, দুদক দলীয় এজেন্ডা নিয়ে এখানে কাজ করছেন। যার চাকরি করছেন তার কথা শুনতে হচ্ছে। একদলীয় শাসনের নির্দয় রূপ আমরা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে দেখতে পাচ্ছি। যারা একটু বিবেকবান তাদের বন্দুকের নল দিয়ে সরিয়ে দেয়া হয়। তাদের কোথাও স্থান নেই।  রিজভী আরো বলেন, খালেদা জিয়াকে যে প্রক্রিয়ায় আটকে রাখা হয়েছে তাতে মনে হচ্ছে তার কাছ থেকে একটা মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টায় আছে। তারা ভাবছে এভাবে করলে খালেদা জিয়া হয়তো এক পর্যায় সব মেনে নেবেন। এক তরফা নির্বাচন ও খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্যই এই নির্দয় ষড়যন্ত্র করছে। সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে চাই, এদেশে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় সে নির্বাচনে বিএনপি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় আসবে।

[আলিম/এফএম]



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ডিএমপির চার থানায় ওসির রদবদল

এক বছরে বিশ্বে ধনীরা আরো ধনী হয়েছেন, গরিবরা আরো গরিব

নাজমুল হুদার জামিন

নারায়ণগঞ্জের চাঁদমারী বস্তিতে ভয়াবহ আগুন

টেকনাফে গ্রেপ্তারের পর মাদক ব্যবসায়ী ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

বৃটেনে বাংলাদেশ হাইকমিশনারের সঙ্গে ওয়েল্স বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের নেতাদের সাক্ষাৎ

আগুন নিয়ে খেলা: নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল তুলে নিন, না হয় উত্তর-পূর্ব ভারত জ্বলতে পারে

‘সব ঠিক থাকলে ওয়েব সিরিজের কাজে আপত্তি নেই’

ঘরে-বাইরে বেকায়দায়

অপরাধীদের শুধু শাস্তি নয় পুনর্বাসনও জরুরি

জাবিতে ‘মাদক পার্টিতে’ তুলকালাম

৩ শিশু ধর্ষিত

নাটোরে কাউন্সিলরকে কুপিয়ে হত্যা

চলতি মাসেই মামলা: অর্থমন্ত্রী

ওনারা ধান ভানতে শিবের গীত গাইছেন

ঐক্যফ্রন্টের বিজয়ীরা এককভাবে কি সংসদে যেতে পারবেন?