ভারতে জাতীয় সঙ্গীতের সংশোধন চেয়ে আরজি

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৮ মার্চ ২০১৮, রোববার
ভারতে দেশটির  জাতীয় সঙ্গীতে শব্দ সংশোধনের আরজি জানানো হয়েছে।  এই আরজি জানিয়েছেন আসাম থেকে নির্বাচিত কংগ্রেসের সাংসদ রিপুন বোরা। তিনি সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় এক প্রস্তাবে জাতীয় সঙ্গীতে ‘সিন্ধু’ শব্দের পরিবর্তে ‘উত্তরপূর্ব’ শব্দটি যোগ করার  আরজি জানিয়েছেন । তিনি বলেছেন, সংসদই জাতীয় সঙ্গীতকে গ্রহণ করেছে, তারাই পারে জাতীয় সঙ্গীতে সংশোধন করতে।  রিপুন বোরা তার প্রস্তাবের সমর্থনে বলতে গিয়ে বলেছেন, এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক যে দেশের জাতীয় সঙ্গীতে ভারতের উত্তর পূর্বের কোনও উল্লেখ নেই। অন্যদিকে, সিন্ধুকে জাতীয় সঙ্গীতের অন্তর্ভুক্ত রাখা হয়েছে, যা বর্তমানে ভারতের অংশ নয়। সিন্ধু বর্তমানে পাকিস্তানের অংশ, যেটি ভারতের শত্রু দেশ। তিনি আরও জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে জাতীয় সঙ্গীতে সংশোধনের জন্য অনুরোধ জানানো হবে। এর আগে ২০১৬ সালে শিবসেনা সদস্য অরবিন্দ সাওয়ান্তও এই একই ইস্যু নিয়ে লোকসভাতে সরব হয়েছিলেন। তারও দাবি ছিল, সিন্ধু শব্দের পরিবর্তে অন্য কোনও শব্দ জাতীয় সঙ্গীতে ব্যবহার করা হোক।
১৯১১ সালে নোবেল জয়ী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘জনগণ মন অধিনায়ক জয় হে’ সঙ্গীতটি রচনা করেন। তখন ভারত ছিল অবিভক্ত। আর ১৯৫০ সালে গণপরিষদের সভায় রবীন্দ্রনাথের লেখা এই সঙ্গীতটিই দেশের জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে গ্রহণ করা হয়। উল্লেখ্য, বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতেরও লেখক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। 



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Tipu

২০১৮-০৩-২০ ০৯:৩৫:৪৮

বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত ও পরিবর্তন করতে হবে। বাঙালি মুসলমানের দুশমন ও ব্রিটিশ দালাল রবীন্দ্রনাথের কবিতা আমাদের জাতীয় সংগীত তা ভাবতেই ঘৃণা লাগে।

আপনার মতামত দিন

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার

ঢাকার ২০০ বহুতল ভবনের নির্মাণ এবং অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থায় অনিয়ম

অসীম ক্ষমতার মালিক হবেন মিশরের প্রেসিডেন্ট!

কে এই রুহুল আমিন

‘বাংলাদেশ দৈবক্রমে সৃষ্টি হয়নি’

পবিত্র লাইলাতুল বরাত আজ

দল গোছাতে ব্যস্ত বিএনপি

অন্যদেশ থেকে লোক এনে প্রচার চালাচ্ছে তৃণমূল

ফেরদৌস-নূরের পর...

মোকাব্বির খানকে শোকজ

ভাই নেই, তাই থেমে গেছে নেহার পড়াশোনা

স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির আগেই সফল হবো

৮ বছরেও বিচার হয়নি

অনুমতি পেলেই সিঙ্গাপুরে নেয়া হবে সুবীর নন্দীকে

‘অকুপেন্সি সার্টিফিকেট’ ছাড়া বহুতল ভবন ব্যবহার করা যাবে না

পোশাক শিল্পের অবদান বাড়লেও পরিবেশের জন্য উদ্বেগজনক