শাকিব-অপুর তালাক কার্যকর হলো আজ

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ মার্চ ২০১৮, সোমবার
বিচ্ছেদের ভূমিতে আজ থেকে তারা চূড়ান্তভাবে পা রাখলেন। বলা হচ্ছে দেশীয় চলচ্চিত্রের দুই সুপারস্টার এবং দম্পতি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের কথা। এদের বিয়ে ভেঙে গেছে আগেই। আর আজ ১২ই মার্চ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিবাহবিচ্ছেদ হলো তাদের। তেমনটাই দাবি করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন অঞ্চল ৩-এর নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন। গণমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের তালাক বিষয়ে তৃতীয় ও শেষ শুনানি ছিল আজ। আপস-মীমাংসার জন্য তাদের আজ ডাকা হয়েছিল। এর আগে ১২ই জানুয়ারি ও ১২ই ফেব্রুয়ারি ডাকা হয়।
১২ই জানুয়ারি অপু বিশ্বাস উপস্থিত হলেও অন্য দুটি তারিখে তিনি আসেননি। আর শাকিব খান কোনো তারিখেই উপস্থিত হননি। বিধিবদ্ধ সময়সীমা ৯০ দিন উত্তীর্ণ হওয়ায় সালিস মামলার আজ নিষ্পত্তি হয়েছে। আজ থেকে তালাক কার্যকর হচ্ছে। হেমায়েত হোসেন আরো জানান, ১২ই জানুয়ারি উপস্থিত হয়ে শাকিব খানের সঙ্গে সংসার করার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন অপু বিশ্বাস। যেহেতু শাকিব খান একবারও আসেননি, তাই এ ব্যাপারে কোনো সমঝোতা সম্ভব হয়নি। এদিকে শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের তালাক কার্যকরের তারিখ নিয়ে ভিন্নমত পাওয়া গেছে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন অঞ্চল ৩-এর নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেনের বক্তব্যের বিরোধিতা করে একজন আইনজীবী জানান, অপুকে পাঠানো তালাকের নোটিশে দেখা যায়, সেখানে তালাকের তারিখ ‘২২ নভেম্বর ২০১৭’ উল্লেখ করা হয়েছে। তা ছাড়া গণমাধ্যমেও শাকিবের আইনজীবী বলেছেন, শাকিবের পক্ষে ‘২২ নভেম্বর ২০১৭’ তারিখে তিনি অপুকে ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনকে তালাকের লিখিত নোটিশ পাঠান। আইনের বিধান মোতাবেক, ৯০ দিন সময় গণনা ওই ২২শে নভেম্বর থেকেই শুরু হয়েছে। যেহেতু তালাকটি সমঝোতা বা অন্যভাবে প্রত্যাহার হয়নি, সে হিসাবে ‘২০১৮ সালের ২২শে ফেব্রুয়ারি’ ৯০ দিন পূরণ হয়েছে এবং ওইদিন থেকেই শাকিব-অপুর তালাক কার্যকর হয়েছে। এই আইনজীবীর মতে, আইনের বিধান হলো, তালাকের একটি নোটিশ স্বামী বা স্ত্রীর কাছে যাবে। আরেকটি নোটিশ সিটি করপোরেশনের মেয়রের (ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভা চেয়ারম্যান, যেটা প্রযোজ্য) কাছে যাবে। নোটিশ পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে করপোরেশন উভয় পক্ষের প্রতিনিধিদের নিয়ে সালিশি পরিষদ গঠন করবে এবং বিষয়টা আপস-মীমাংসার চেষ্টা করবে। তাদের ক্ষমতা বা দায়দায়িত্ব আপস-মীমাংসার উদ্যোগেই সীমাবদ্ধ। তাদের উদ্যোগে পক্ষরা সাড়া দিতেও পারে, আবার না-ও পারে। তাতে কিছু যায়-আসে না। শাকিব খান জানান, যা হয়েছে সবকিছু আইনি প্রক্রিয়ায় হয়েছে। এসব নিয়ে এখন আর কিছুই ভাবতে চাই না। সবকিছুই অতীত। আমি এখন কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছি। কাজ নিয়েই থাকতে চাই। প্রসঙ্গত, গত বছর ১০ই এপ্রিল একটি টিভি চ্যানেলের সরাসরি অনুষ্ঠানে এসে বিয়ে ও সন্তানের খবর ফাঁস করেন অপু বিশ্বাস। এ সময় তার সঙ্গে ছিল ছয় মাস বয়সী ছেলে আব্রাম। সেদিন অপু বলেন, আমি শাকিবের স্ত্রী, আমাদের ছেলে আছে। বিয়ের খবর জনসমক্ষে আসার পর দুজনের সম্পর্কের টানাপোড়েন তৈরি হয়। পরিস্থিতি এমন অবস্থায় পৌঁছায় যে, শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস নিজেদের মধ্যে মুখ দেখাদেখি বন্ধ করে দেন। শুধু ছেলে আব্রামের কারণে মাঝেমধ্যে দেখা হলেও কথা হয়নি দুজনের। এদিকে অপুও এখন নতুনভাবে কাজে ফিরতে চান বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘আমি কচ্ছপ গতিতে চলতে পছন্দ করি’

স্থায়ী কমিটির বৈঠকে জাতীয় ঐক্যের পর্যালোচনা করেছে বিএনপি

ভারতের কাছে পাত্তাই পেল না পাকিস্তান

ঐক্যের কর্মসূচি পর্যবেক্ষণ করছে আওয়ামী লীগ

ইতিবাচক অগ্রগতি দেখছে বিএনপি

সুধীজনদের সঙ্গে বৈঠকে বসছে ঐক্যপ্রক্রিয়া

কাল্পনিক মামলার তদন্তে কমিশন চেয়ে হাইকোর্টে রিট

আফগানদের বিপক্ষে লড়াকু ব্যাটিং

ঐক্য ভাঙবে না আরো অনেকে যুক্ত হবে

গাজীপুরে শ্রমিক বিক্ষোভ অবরোধ, পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ার শেল

বাবা ডেকেও রেহাই মেলেনি লুৎফার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি ড. কামালের

আওয়ামী লীগের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না

বাড়ছে হৃদরোগ, আক্রান্ত হচ্ছে যুবকরাও

দুই বন্দরে ঘুষ ছাড়া সেবা মেলে না

কথিত বাংলাদেশি অভিবাসীদের ‘উইপোকা’ বললেন অমিত শাহ