তাঁকে শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে পাস করে এসে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে হয়

ফেসবুক ডায়েরি

আহমেদ তানভীর | ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:২৬
আমাদের দেশের রাজনৈতিক সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে এ দেশের জন্মলগ্ন থেকে কখনোই শিক্ষা বা গবেষণার পীঠস্থান হিসেবে দেখেনি। তারা এটিকে দেখেছে রাজনৈতিক পেশিশক্তি প্রদর্শনের অন্যতম জায়গা হিসেবে। তাদের কাছে হিসাব অত্যন্ত সোজা। যেকোনো আন্দোলন, রাজনৈতিক বা অরাজনৈতিক হোক, সেটি গড়ে ওঠে এবং বেগবান হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে কেন্দ্র করে। তাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে ঠান্ডা রাখতে পারলে অনেকখানি নাকে তেল দিয়ে ঘুমানো যায়। এই রাজনৈতিক পেশিশক্তির আঁধারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে প্রথমে যেটি দরকার, সেটি হলো ক্ষমতায় থাকা রাজনৈতিক শক্তির একান্ত অনুগত একজন ব্যক্তি। বেশির ভাগ সময়ে তাঁকে আনুগত্যের পরীক্ষা দিতে হয় দলীয় শিক্ষকদের নেতৃত্ব দিয়ে এবং তাঁর নেতা হওয়ার যে ক্ষমতা আছে, সেটির প্রমাণ দিয়ে। সে ক্ষেত্রে তাঁকে শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে পাস করে এসে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে হয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

প্রস্তুতি ম্যাচে সহজ জয় বাংলাদেশের

১৯ জেলার বন্যার্তদের মাঝে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির

বৃটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন

‘স্টোকস মিথ্যাচার করেছেন’

এক প্রেমিককে পেতে দুই যুবতীর জোট, একজনের স্বামীকে হত্যা

‘টাকার বস্তা’ দিয়ে এমবাপ্পেকে আটকাচ্ছে পিএসজি!

বাছিরের জামিন নাকচ, কারাগারে

‘গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা’

সিরাজগঞ্জে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর ফাঁসি

বন্দরে গার্মেন্ট শ্রমিককে কুপিয়ে হত্যা, গ্রেপ্তার ৫

উত্তরাখণ্ডের শতাধিক গ্রামে ৩ মাসে জন্ম নেয়নি কোনো কন্যাশিশু

দেশে কোনো সরকার আছে বলে দেশবাসী মনে করে না: দুদু

মানববন্ধনেও মাকে খুঁজেছে তুবা

সাউথ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

সিরাজগঞ্জে ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে যুবককে গণধোলাই

গণপিটুনির বিরুদ্ধে সরব হলেন নাসিরুদ্দিন শাহ