ঘন কুয়াশার কারণে শীত কমছে না

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২২
উপ-মহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের একটি বর্ধিতাংশ পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত থাকায় একটি স্বাভাবিক মৌসুমী লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এর প্রভাবে সারা দেশে মেঘলা আবহাওয়া বিরাজ করছে। এতে ঠাণ্ডা কমছে না। একই সঙ্গে লঘুচাপের কারণে ঘন কুয়াশা পড়ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। শনিবার সকাল থেকে আজ রোববার সকাল ৯টা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয় মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারা দেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং কোথাও কোথাও তা দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে রাতে নৌপথে চলাচল বন্ধ এবং সড়কসহ রেল ও আকাশ পথেও চলাচল বিঘ্নিত হতে পারে।
আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, বর্তমানে টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, যশোর, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, বরিশাল, সীতাকুণ্ড ও রাঙ্গামাটি অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। তবে এই শৈত্যপ্রবাহ আজ রোববার নাগাদ দেশের কোনো কোনো এলাকায় কমতে পারে। এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকলেও সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি পেয়ে শীতের প্রকোপ কিছুটা কমতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী গতকাল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
আবহাওয়াবিদ ড. আবদুল মান্নান মানবজমিনকে বলেন, এখন শীতকাল হওয়ায় কুয়াশা ও শীত একেকদিন একেক এলাকায় ভিন্ন ভিন্ন অনুভূত হতে পারে। তবে সার্বিকভাবে আকাশ মেঘলা ও কুয়াশা বেশি পড়ার কারণ হলো দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ অবস্থান করছে। এতে সাধারণত বৃষ্টি হয় না। তবে মেঘলা থাকার কারণে প্রচুর কুয়াশা পড়ে। এতে জনজীবনের উপর প্রভাব পড়ে। তিনি আরো বলেন, গত সপ্তাহেই একটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহ গেল। এখনই বড় ধরনের শৈত্যপ্রবাহ আসার আশঙ্কা নেই। কিন্তু মাসের বাকি সময়ের মধ্যে আরেকটি শৈত্যপ্রবাহে দেশের কোনো কোনো এলাকায় তীব্র শীত জেঁকে বসতে পারে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

kazi

২০১৮-০১-১৪ ০০:৪৭:৪০

অন্যভাবে বলা যায় শীতের কারণে ঘন কুয়াশা কমছে না। এটা অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত ।

আপনার মতামত দিন