ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী ওরফে প্রাণের ঘটনায় সহকর্মীরা লজ্জিত, বিচার দাবি

ভুক্তভোগী ছাত্রীকে হুমকি দেয়ার অভিযোগ

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:০১
ডাক্তার মোহাম্মদ রিয়াদ সিদ্দিকী ওরফে প্রাণের যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক চিকিৎসকই বিব্রত ও লজ্জিত। এই ঘটনাকে লজ্জাজনক অ্যাখায়িত করে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন তারা। রিয়াদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে ইদানীং ধর্ষণের অভিযোগসহ ব্যাপক যৌন হয়রানির ঘটনা শুনে আসছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির চিকিৎসকরা। মেডিকেলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে এ ঘটনা তাদের পেশাকে কলঙ্কিত করেছে বলে তারা মনে করেন। তার শাস্তি হওয়া দরকার বলেও তারা মনে করেন। চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগে যোগদানের পর থেকে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন নারী রোগীকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ উঠেছে।
সর্বশেষ প্রাণ ধরা পড়েছে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করে। প্রাণের বিরুদ্ধে এর আগে গত বছর বিএসএমএমইউ’র বহির্বিভাগে এক নারী যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছেন বলে পাবলিক হেলথ অ্যান্ড ইনফরমেটিকস বিভাগের একজন চিকিৎসক জানিয়েছেন। চিকিৎসক রিয়াদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য নিয়ে নানা সময়ে অনেক কথা শুনেছেন। বিশেষ করে সুন্দরী রোগী দেখলে তার মন ঠিক থাকে না। তিনি অভিযোগ করেন ওই ঘটনার বিচার হলে পুনরায় এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে সাহস পেতে না ডাক্তার রিয়াদ। তিনি বলেন, আমরা সত্যি লজ্জিত। এ ধরনের ঘটনা কখনই সমর্থনযোগ্য নয়।
ভুক্তভোগীর চাচা ইস্রাফিল অভিযোগ করে মানবজমিনকে বলেন, ‘মামলার পর থেকে মোবাইলে অপরিচিত নম্বর থেকে ওই ছাত্রীকে ফোন দিয়ে হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে। হুমকিতে বলেন, ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করেছিস। ভোলায় আস দেখাইয়া দেমু।’ ইস্রাফিল আরো জানান, ‘পুুলিশ তাদেরকে জানিয়েছেন ডাক্তার রিয়াদকে পাওয়া যাচ্ছে না, উনি পলাতক। পেলেই গ্রেপ্তার করা হবে।’ এদিকে গত সপ্তাহ থেকেই বিএসএমএমইউ ক্যাম্পাস থেকে লাপাত্তা ডাক্তার রিয়াদ ওরফে প্রাণ। যদিও ডাক্তার রিয়াদ বর্তমানে একই বিশ্ববিদ্যালয়ে চর্ম ও যৌন রোগের ওপর পাঁচ বছর মেয়াদি উচ্চতর একটি এমডি কোর্সের অধ্যয়ন করছেন। এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহবাগ থানার এসআই রিপন কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে কয়েকবার যোগাযোগ করেও পাওয়া যায়নি।
ঘটনার নায়ক স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে লেখাপড়া করেছেন। মেডিকেলে রিয়াদ সিদ্দিকীকে সবাই ডা. প্রাণ নামেই চিনেন। রাজনীতি-সংস্কৃতি দুটি ক্ষেত্রেই রয়েছে তার বিচরণ। ছাত্রজীবন থেকেই গান করেন। রাজনীতি করেন। কলেজে লেখাপড়ার করার সময়ে থেকেই সহপাঠী একাধিক মেয়ের সঙ্গে ছিল তার অন্তরঙ্গ সম্পর্ক। কলেজের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান করার সুবাধে অনেকের সঙ্গে পরিচিত হয়ে ওঠেন তিনি। ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন তিনি। নারী সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে অতীতে মারধরেরও শিকার হয়েছেন। যদিও তার ঘনিষ্ঠদের দাবি রাজনৈতিক কারণেই কয়েক বার প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়েছেন রিয়াদ। বিএসএমএমইউ সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালের দিকে মেডিক্যাল অফিসার হিসেবে যোগ দেন বিএসএমএমইউতে। এখানে যোগ দেয়ার পর একাধিকবার তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠে। এসব অভিযোগ থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ানোর আগেই সমাধান করেছেন সহকর্মীরা। সর্বশেষ ভোলায় ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠার পর তা আর সামলাতে পারেননি। অভিযোগটি ঢাকা মেট্টোপলিটনের শাহবাগ থানায় মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ধর্ষণের আলামতও পাওয়া গেছে। মামলা দায়েরের পরদিন থেকে পলাতক রয়েছেন ডাক্তার রিয়াদ। বিএসএমএমইউ’র তার সহকর্মীরা জানান, কলেজ থেকে কর্মস্থল সর্বত্রই নারীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা তার। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও নারী ভক্তের সংখ্যা বেশি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচয় হয়ে অনেকের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়েছেন এই ডাক্তার।
এদিকে এই ঘটনার পর বিএসএমএমইউতে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি ঘটনার সত্যতা সম্পর্কে অনুসন্ধান করবে। সাত কর্মদিবসের মধ্যে তারা প্রতিবেদন দিবেন। প্রতিবেদন অনুসারে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বিএসএমএমইউ’র জেনালের সার্জারি বিভাগের একজন সহযোগী অধ্যাপক এই ঘটনাকে লজ্জাজনক অ্যাখায়িত করে সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন। মেডিকেলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে এই ঘটনা কলঙ্কিত করেছে। তার শাস্তি হওয়া দরকার। তিনি বলেন, এটা আমাদের পেশার জন্য ক্ষতিকর। রিয়াদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে ইদানীং ধর্ষণের অভিযোগ প্রায় তারা শুনতে পারছেন। প্রসঙ্গত, গত ৮ই জানুয়ারি ধর্ষণের অভিযোগে রিয়াদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে শাহবাগ থানায়। নির্যাতিতা তরুণীর অভিযোগ, ২৯শে ডিসেম্বর ভোলায় রিয়াদের চেম্বারে এবং ৩১শে ডিসেম্বর ঢাকায় বিএসএমএমইউ’তে বিশ্রামাগারে ধর্ষণ করা হয় এই তরুণীকে। রোগী হিসেবে ডাক্তার রিয়াদের কাছে চিকিৎসা নিতে গেলে ভয়-ভীতি দেখিয়ে, ব্ল্যাকমেইল করে ধর্ষণ করা হয় তাকে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

কারাবন্দি বাবাকে দেখে ফেরার পথে প্রাণ গেল ছেলের

আদালতের এজিপি ফেন্সিডিলসহ আটক

ফেনীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা খুন

বিএনপি নেতা কামরুল ঢালীর বিরদ্ধে দুদকে মামলা

সড়ক দুর্ঘটনায় ব্যাংক কর্মকর্তা নিহত

পদ্মা সেতুর ৫৬ শতাংশ কাজ শেষ

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করলেন ইয়াং হি লি

আইভীর সিটিস্ক্যান ও এমআরআই সম্পন্ন, রাতে প্রেস ব্রিফিং

‘যথাসময়ে সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেব’

পর্নো তারকা অলিভিয়ার মৃত্যু

বিরোধীদের নিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আলোচনা শুরু করছে পাকিস্তান সরকার

অধিভুক্তদের ঢাবির পরিচয়পত্র নয়

ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সুপ্রিম কোর্ট

ময়মনসিংহে কলেজ ছাত্র নিহতের ঘটনায় মামলা

কাতার ২০২২ সালের বিশ্বকাপ আয়োজন করতে পারবে?

যুক্তরাষ্ট্রে অচলাবস্থার নেপথ্যে