হলদিয়া পরিবার কল্যাণকেন্দ্রটি ব্যবহার অনুপযোগী

বাংলারজমিন

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি | ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, রোববার
আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ তক্তাবুনিয়া স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্র এবং আবাসিক কোয়ার্টারটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। গ্রামের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ৪০ বছর আগে তৎকালীন সরকার উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ৭ ইউনিয়নে ৭টি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্র এবং আবাসিক কোয়ার্টার নির্মাণ করে। বর্তমানে স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন ও কোয়ার্টারটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। ছাদ চুঁইয়ে পানি পড়ে। দেয়ালের প্লাস্টার খসে পড়ছে। দরজা-জানালা ভেঙে গেছে।
বাথরুম ব্যবহার করা যাচ্ছে না। আমতলী উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৭ সালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অর্থায়নে উপজেলায় ৭টি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্র এবং আবাসিক কোয়ার্টার নির্মাণ করা হয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্রটির পরিবারপরিকল্পনা পরিদর্শিকা ইসরাত জাহান লিজা জানান, ভবনের পলেস্তার প্রতিনিয়ত খসে পড়ছে। ভয়ের মধ্যে মা ও শিশুদের চিকিৎসা সেবা দিতে হয়। আবাসিক কোয়ার্টার ব্যবহার করা যাচ্ছে না। এ স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে গ্রামের মানুষের চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে। বিশেষ করে মা ও শিশুরা বেশি চিকিৎসা সুবিধা নিচ্ছেন। ৬ মাসের শিশুসহ পরিবারপরিকল্পনা কল্যাণকেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য আসা সাফিয়া বেগম (২৫) জানান শিশু নিয়ে ভবনের মধ্যে চিকিৎসা নিতে ভয় করছে। যেকোনো সময় পলেস্তারা খসে মাথার ওপর পড়তে পারে। এসব স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্রের দুরবস্থার কথা সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে একাধিকবার অবহিত করা হলেও এখন পর্যন্ত সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি বলে উপজেলা পরিবারপরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসাইন জানান। হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম মৃধা বলেন, হলদিয়ার শ শ মা ও শিশুকেন্দ্রটি থেকে প্রতিনিয়ত সেবা নিচ্ছে। কিন্তু কেন্দ্রটির ভবনগুলো জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। প্রতিনিয়ত পলেস্তার খসে পড়ছে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। তিনি জরুরিভাবে পুরনো ভবন সংস্কার ও নতুন ভবন নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কাছে দাবি জানান।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন