পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় ৮ ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল শুরু

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, মানিকগঞ্জ থেকে | ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, রোববার
ঘনকুয়াশার কারণে টানা ৮ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। কুয়াশার তীব্রতায় রাত আড়াইটায় ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। দীর্ঘ ৮ ঘণ্টা মাঝ নদীতে ৫টি ফেরি যানবাহন ও যাত্রী বোঝাই আটকে থাকে। পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় যানবাহনের লম্বা লাইন প্রায় চার কিলোমিটার ছাড়িয়ে যায়। আটকে পড়ে ৫ শতাধিক যানবাহন।
বিআইডব্লিউটিসি আরিচা অঞ্চলের এজিএম নাছির মোহাম্মদ চৌধুরী জানান, গত শুক্রবার মধ্য রাতের পর পদ্মায় কুয়াশার তীব্রতা বাড়তে থাকে।
রাত আড়াইটার দিকে কুয়াশার ঘনত্ব বেড়ে গেলে নৌপথ দৃষ্টিগোচরের বাইরে চলে যায়। এতে নৌ দুর্ঘটনা এড়াতে ফেরি, লঞ্চসহ সকল প্রকার নৌচলাচল বন্ধ রাখা হয়। এসময় মাঝ নদীতে আটকে পড়ে ৫টি ফেরি।
শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কুয়াশার তীব্রতা কিছুটা কমে গেলে ফেরি চলাচল শুরু হয়। দীর্ঘ ৮ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া ঘাটে ৫ শতাধিক যানবাহন আটকে পড়ে। যানবাহনের লম্বা লাইন ঘাট ছাড়িয়ে যায় প্রায় চার কিলোমিটার। ফেরি চলাচল শুরু হওয়ার পর আটকে পড়া যানবাহন পারাপারে হিমশিম খেতে হয়েছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী বাস বিশেষ করে নৈশকোচ, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসগুলো আগে পারাপার করা হচ্ছে। এছাড়া বিশ্ব ইজতেমাগামী ও কলকাতাগামী বাসগুলো আগে পারাপারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আটকে পড়া যানবাহনগুলো পারাপারে বিকাল হয়ে যাবে বলে জানান বিআইডব্লিউটিসির এই কর্মকর্তা। এদিকে পাটুরিয়া ঘাটের মতো দৌলতদিয়া ঘাটেও যানবাহনের দীর্ঘ সারি পড়েছে। সেখানে দেখা দিয়েছে যানবাহনের জট। দীর্ঘ ৮ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় রাতভর পাটুরিয়া ও দৌলতদিয়া ঘাটে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের হাজার হাজার যাত্রী চরম ভোগান্তির শিকার হন। কনকনে শীতে বিশেষ করে নারী-শিশু ও বয়স্ক মানুষের দুর্ভোগের সীমা ছিল না।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন