ছুটির দিনে বাণিজ্যমেলায় উপচেপড়া ভিড়

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার
ছুটির দিন ছাড়া সপ্তাহের অন্যান্য দিনে বাণিজ্যমেলায় দর্শক সমাগম থাকে কম। ছুটির দিনে এ দৃশ্যপট পাল্টে যায়। বিক্রেতারাও অপেক্ষায় থাকেন এদিনের। গতকাল শুক্রবার বাণিজ্যমেলা গড়িয়েছে ১২তম দিনে। সকালে মেলা গেট ওপেন হওয়ার পর থেকেই দর্শক-ক্রেতা প্রবেশ করতে থাকেন দল বেধে। শীত উপেক্ষা করেই তারা মেলায় ভিড় জমান।
দুপুরের পর থেকে লোকজন লাইন ধরে প্রবেশ করতে থাকে। আর সন্ধ্যা নামতেই মেলা মাঠে দর্শনার্থীদের ঢল নামে। মেলাঙ্গন ছিল কানায় কানায় পরিপূর্ণ। বাণিজ্যমেলায় আগত দর্শক ক্রেতাদের নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ছিল বিশেষ নজরদারি। এদিকে ক্রেতা বাড়ায় স্টল মালিক ও বিক্রয়কর্মীদের হাসোজ্জ্বল থাকতে দেখা যায়। তারা নিজ স্টলে ক্রেতাদের টানতে বাহারি সাজে সজ্জিত হয়ে বিজ্ঞাপনও দেন। ক্রেতা আকর্ষণে স্টলগুলোও সাজানো হয়েছে নানা বৈচিত্র্যে। মেলার সৌন্দর্য তুলে ধরতে মেলা আয়োজকরা ফুলের বাগান ও পানির ফোয়ারা তৈরি করেছেন; যা তরুণ-তরুণী ও শিশুদের দিচ্ছে বিশেষ বিনোদন। তারা এসব জায়গায় স্মৃতিও ধারণ করছেন। মাসব্যাপী এ মেলায় গতকাল দর্শকদের চাহিদার শীর্ষে ছিল খাবার, ক্রোকারিজ ও রান্নাসামগ্রী। বাচ্চাদের জন্য তৈরি কিডস কর্নারেও ভিড় দেখা যায়। সে তুলনায় গার্মেন্টস সামগ্রীর স্টলগুলোয় লোকজনের পদচারণা ছিল কম। ছুটির দিনে আসা লোকজনের বেশিরভাগ এসেছেন পরিবারসহ। মানবজমিনের সঙ্গে কথা হয় প্রাইভেট কোম্পানির কর্মকর্তা সৈয়দ জাবেরের সঙ্গে। তিনি জানান, এ বছরের মেলায় গতকালই প্রথম এসেছেন। দুই ছেলেসহ আর এক মেয়েকে নিয়ে মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখছেন। ছেলেদের জন্য কয়েকটি খেলনা এবং মেয়েকে জুয়েলারি পণ্য কিনে দিয়েছেন। তাছাড়াও কয়েকটি রান্না সামগ্রীও কিনেছেন। সাভার থেকে মেলায় ঘুরতে এসেছেন দুই বন্ধু সাবিতা ও মৌরি। তারা জানান, মেলায় এসে তাদের অনেক ভালো লাগছে। তারা সবকিছু এক জায়গায় মেলা আয়োজকদের ধন্যবাদ দেন। পছন্দ হলে দুই একটি জিনিসপত্র কিনছেন। নানা আঙ্গিকে তৈরি করা মেলার স্টলগুলোই তাদের আকৃষ্ট করেছে। শিশু নাবিল মেলায় এসে আনন্দে আত্মহারা। নাবিল তার মায়ের হাত ধরে মেলার এক মাথা থেকে অন্য মাথা পর্যন্ত ঘুরে দেখছে। মিঠাই অন্যরকম স্বাদের স্টলের বিক্রয়কর্মী আসাদুল হোসেন জয় বলেন, মেলায় অন্যান্য দিনের তুলনায় শুক্রবার তাদের বিক্রি বেশি হয়েছে। ছুটির দিনে ক্রেতা উপস্থিতির ওপর তাদের বিশেষ টার্গেট থাকে। বিভিন্ন প্যাকেজে ডিসকাইন্ট অফার দেয়া হয় এদিন। অন্যদিকে আকিজের ফ্রুটিকা আমসহ গাছের প্রাকৃতিক চিত্র তুলে ধরে দর্শকদের টেনে নিচ্ছেন তাদের স্টলে। সেখানে ছবি তোলার ধুম পড়তেও দেখা গেছে। মেলায় আগত ক্রেতাদের জন্য খাবারের দাম ঠিক করে দিয়েছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো। ভোক্তাদের মান রক্ষায় মেলায় সর্বদা তদারকি করছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। পাশাপাশি ডিএমপির বিশেষ দল সিভিল পোশাকে মেলা পর্যবেক্ষণ করছেন। গত ১১ দিনে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ২০টির অধিক স্টলে অভিযান চালিয়ে ১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে খাবারের দোকান, ক্যাফে ও ফার্নিচারের স্টল, বিদেশি পণ্যের স্টল ও কাপড়ের দোকান। মেলায় আগাত দর্শনার্থীরা অনেকেই খালি হাতে বের হয়ে হয়েছেন। তাদের অভিযোগ মেলার পণ্যের মান খুব ভালো নয়। অন্যদিকে যারা বিভিন্ন পণ্য ক্রয় করছেন তারা এক জায়গায় সব ধরনের পণ্য পাওয়াতেই খুব খুশি। কয়েকজন আবার বলেছেন, তারা ডিসকাউন্টে কম মূল্যে পেয়ে বেশি বেশি কিনছেন। এ বছরের বাণ্যিজ্যমেলার ৫৮৯টি স্টলের তথ্য-সংবলিত দিকনির্দেশনার জন্য রয়েছে একটি ডিজিটাল ম্যাপ। মেলার মূল গেট থেকে ভেতরে সামনেই প্রদর্শন করা রয়েছে। এ সাইট থেকে নির্দিষ্ট স্টল দ্রুত খুঁজে বের করে নিচ্ছেন দর্শক-ক্রেতা। সাধারণ মানুষের কাছে মেলার স্টলগুলো সহজে উপস্থাপন করার জন্য আসা ‘ডিআইটিএফ-২০১৮’ নামে একটি অ্যাপ তৈরি করা হয়েছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ছয় মামলায় রিপনের জামিন

চাঁদাবাজির অভিযোগে দুই পুলিশ বরখাস্ত

এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন বন্ধ থাকবে ফেসবুক

ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকাকে অনেক পিছনে ফেলেছে বাংলাদেশ

মেয়রের বাড়িতে হামলার মামলায় ১০ আসামি কারাগারে

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত

নারায়ণগঞ্জের থানায় আইভীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর গ্রেপ্তার

বলিউড ছবি নিয়ে ভারতে তোলপাড়, নিষেধাজ্ঞা নেই-সুপ্রিম কোর্ট

‘আমি আমার শহরের লিডার’

চকবাজারে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

ভারতে স্বামীর সামনে স্ত্রীকে ধর্ষণ

দেশীয় অস্ত্রসহ আটক ৯ ডাকাত

রাজধানীতে মা-মেয়ের ‘আত্মহত্যা’

'যত বেশি সম্ভব মুসলিম মারতে চেয়েছি'

সিএনজি চালক হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ২