ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ পাবনা মেডিকেল কলেজ বন্ধ ঘোষণা

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার,পাবনা থেকে | ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:০৮
পাবনা মেডিকেল কলেজে (পামেক) ক্যাম্পাসে নতুন শিক্ষার্থীদের বরণে আধিপত্য বিস্তার ও সিনিয়র জুনিয়র দ্বন্দ্বের জেরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এতে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, বর্তমান সাধারণ সম্পাদকসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। আহতদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য পাবনা মেডিকেল কলেজ বন্ধ ঘোষণা ও তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। শুক্রবার বেলা ২ টার মধ্যে ছাত্র-ছাত্রীদের হোস্টেল ত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে কলেজ প্রশাসন।
পুলিশ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানায়, পাবনা মেডিকেল কলেজের মেডিসিন ক্লাব ও রোটারি ক্লাব নিয়ন্ত্রণ নিয়ে পামেক ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি মাহফুজ নয়ন এবং সাধারণ সম্পাদক অদ্বিতীয় দে’র কয়েকদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলছিল। এরই জের ধরে নতুন শিক্ষার্থীদের বরণকে কেন্দ্র করে
 বৃহস্পতিবার রাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে তিন দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু তোরাব মিম, বঙ্গবন্ধু হলের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান, উপ যুগ্ম সম্পাদক জয়দেব কুমার সূত্রধর, সাবেক সাংস্কৃতি সম্পাদক জুবায়ের মাহাবুব, উপ-প্রচার সম্পাদক ইমরান হোসেন, সদস্য নির্ঝর, সাগর আহম্মেদকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আরো জানায়, পাবনা মেডিকেল কলেজের মেডিসিন ক্লাব নিয়ন্ত্রণ করেন পামেক ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি মাহফুজ নয়ন, অপরদিকে সাধারণ সম্পাদক অদ্বিতীয় দের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে রোটারি ক্লাব। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, শুক্রবার সকালে হঠাৎ করে কলেজ প্রশাসন বেলা ২টার মধ্যে ছাত্র-ছাত্রীদের হোস্টেল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। তীব্র শীতের মধ্যে এই অল্প সময়ে বাসায় বা অন্যত্র যাওয়াটা খুব কষ্টের। ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের কারণে আমাদের হয়রানি শিকার এবং কলেজের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।
এ ব্যাপারে পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মো, রিয়াজুল হক বলেন, আমি ঘটনার বিষয়ে শুনেছি। তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে ছাত্ররা ক্যাম্পাসের পরিবেশ ও সুনাম নষ্ট করবে এটা মেনে নেয়া হবে না। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পাবনা মেডিকেল কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বেলা দু’টার মধ্যে ছাত্রদের  হোস্টেল ও তিনটার মধ্যে ছাত্রীদের হোস্টেল ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে যাদের ফাইনাল পরীক্ষা রয়েছে শুধু সেই ছাত্র-ছাত্রীরা পরীক্ষার প্রবেশপত্র দেখিয়ে হোস্টেলে থাকতে পারবেন। এ ঘটনায় মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. সাফিকুল হাসানকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তে ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক জানান, ক্যাম্পাসে নতুন শিক্ষার্থীদের বরণে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার ভোররাত পর্যন্ত পাবনা মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে তিন দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বেশ কয়েকজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে। ক্যাম্পাসসহ হাসপাতাল চত্বরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এই ঘটনায় মেডিকেল কলেজের সাবেক সভাপতি গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানে ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

কারাবন্দি বাবাকে দেখে ফেরার পথে প্রাণ গেল ছেলের

আদালতের এজিপি ফেন্সিডিলসহ আটক

ফেনীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা খুন

বিএনপি নেতা কামরুল ঢালীর বিরদ্ধে দুদকে মামলা

সড়ক দুর্ঘটনায় ব্যাংক কর্মকর্তা নিহত

পদ্মা সেতুর ৫৬ শতাংশ কাজ শেষ

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করলেন ইয়াং হি লি

আইভীর সিটিস্ক্যান ও এমআরআই সম্পন্ন, রাতে প্রেস ব্রিফিং

‘যথাসময়ে সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেব’

পর্নো তারকা অলিভিয়ার মৃত্যু

বিরোধীদের নিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আলোচনা শুরু করছে পাকিস্তান সরকার

অধিভুক্তদের ঢাবির পরিচয়পত্র নয়

ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সুপ্রিম কোর্ট

ময়মনসিংহে কলেজ ছাত্র নিহতের ঘটনায় মামলা

কাতার ২০২২ সালের বিশ্বকাপ আয়োজন করতে পারবে?

যুক্তরাষ্ট্রে অচলাবস্থার নেপথ্যে