গণতন্ত্রের প্রশ্নে ছাড় দেবে না বিএনপি: নোমান

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:২৭
গণতন্ত্রের প্রশ্নে বিএনপি ছাড় দেবে না জানিয়ে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, ওয়ান ইলেভেনের সুবিধাভোগী আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে একক আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে ফের বাকশাল কায়েম করতে চায়। সে লক্ষ্যে পৌঁছুতে তারা ইতিমধ্যে মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করে ফেলেছে। তবে আমরা চাই দেশে একটি গণতান্ত্রিক সরকার ও সুশাসন। গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে আমরা প্রয়োজনে আলোচনা করব, প্রয়োজনে আন্দোলন করব। গণতন্ত্রের প্রশ্নে কোনো ছাড় দেব না। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয় গণতান্ত্রিক মঞ্চ আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।
নোমান বলেন, এই সরকার গণতন্ত্রের কবর রচনা করতে চায়। তারা মনে করে, বুলেটের চাইতে শক্তিশালী ব্যালট যদি এদেশের সাধারণ মানুষ নির্ভেজালভাবে দিতে পারে- তাহলে আওয়ামী লীগ ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে। এই নিক্ষিপ্ত হওয়ার ভয়ে তারা পাল্টা রাজনৈতিক যে শক্তি- শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের হাতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে এবং দেশনেত্রী  বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গড়ে উঠেছে তাকে ধ্বংস করতে চায়। আমরা বলতে চাই, এসব করে বিএনপিকে নিশ্চিহ্ন করা যাবে না। আমাদের দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে জনগণকে দমানো যাবে না। তিনি বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতিতে এমন একটি পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে, যেই পরিস্থিতিতে দেশের মানুষের সঙ্গে হাসিনা সরকারের লড়াই হবে। তারা বন্দুক ও রাইফেল দিয়ে দমিয়ে রাখতে পারবে না। হামলা ও মামলা দিয়ে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকেও কারাগারে বন্দি করতে পারবে না। আর যদি বন্দি করে তাহলে দেখা যাবে, খালেদা জিয়া ফুলের মালা নিয়ে কারাগার থেকে বের হচ্ছেন। আর হাসিনা কারাগারে ঢুকছেন। এই লিখন তার (প্রধানমন্ত্রী) কপালে! তিনি বলেন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে অবশ্যই একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন পূর্বশর্ত। আমরা বলেছি, নির্বাচন আমরা চাই, নির্বাচন আমরা করব। তবে সেই নির্বাচন অবশ্যই নিরপেক্ষ সহায়ক সরকারের অধীনে হতে হবে। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের উপরিকাঠামো যতই শক্তিশালী মনে হোক, আমরা দেখছি তারা দুর্বল হয়ে গেছে। এই দুর্বলতায় তারা এখন বাঁচতে চায়। তারপরও বলব, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের লড়াই এখনও চলছে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত না পর্যন্ত এ লড়াই চলছে এবং চলবে। গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রবীণ এ নেতা বলেন, আমরা বলি আসুন আলোচনা করি, আলোচনার মাধ্যমে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করি। এই লক্ষ্যে আমি সকলকে এক হওয়ার আহ্বানও জানাচ্ছি। জনগণের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ সরকার ও শেখ হাসিনা যে ষড়যন্ত্র করছেন, সেই ষড়যন্ত্রের বিষ দাঁত ভেঙ্গে দিতে হবে। কারণ আমরা যুদ্ধ করে দেশে যে স্বাধীনতা এনেছিলাম, সেই স্বাধীনতা রক্ষা করতে হবে। আর এজন্য প্রয়োজন জাতীয় ঐক্য। জাতীয় ঐক্যের ভিত্তিতেই আগামী নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।  গণতান্ত্রিক মঞ্চের সভাপতি ইসমাইল হোসেন তালুকদার খোকনের সভাপতিত্বে ও জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় মানববন্ধনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, জাসাসের শায়লা, উলামা দলের কাজী রফিকুল ইসলাম ও মুক্তিযোদ্ধা ফরিদউদ্দিন বক্তব্য দেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

kazi

২০১৮-০১-১২ ১৭:২৫:২৪

Take part in election. According to politicians of Bangladesh election means democracy. So, Take part in election to uphold democracy Mr Noman. Don't plan and try anything else.

আপনার মতামত দিন

কলেজে এসকেলেটর বিলাস, ৪৫৪ কোটি টাকার প্রকল্প

ইইউয়ে পোশাক রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ

ফাইনালে বাংলাদেশ হাথুরুকেও জবাব

আইভীর অবস্থা স্থিতিশীল, দেখতে গেলেন কাদের

শামীম ওসমানের বক্তব্যে তোলপাড় নানা প্রশ্ন

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন ‘সভাপতি হলে তুই মাত করে দিবি’

চট্টগ্রামে বেপরোয়া অর্ধশত কিশোর গ্যাং

তুরাগতীরে লাখো মুসল্লির জুমার নামাজ আদায়

দু’দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের তৎপরতা

পিয়াজের কেজি এখনো ৬৫-৭০ টাকা

নির্বাচন চাইলে সরকার আপিল বিভাগে যেতো

‘বাংলাদেশ ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে’

‘শাসকগোষ্ঠীর নির্মম শিকলে বন্দি মানুষ’

ফেনীতে সাড়ে ১৩ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১

ছেলেকে হত্যার পর মায়ের স্বীকারোক্তি

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মচারী নিখোঁজ