চলে গেলেন সিরাজ হায়দার

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ জানুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার
চলে গেলেন বিশিষ্ট অভিনেতা ও নির্মাতা সিরাজ হায়দার। গতকাল ভোর ৬টায় রাজধানীর কল্যাণপুরে নিজ বাসায় হার্ট অ্যাটাক করে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি..... রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। তিনি স্ত্রী অভিনেত্রী মিনা হায়দার, দুই ছেলে, এক মেয়ে ছাড়াও অসংখ্য গুণগ্রাহী ও আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন। তার বড় ছেলে লেলিন হায়দার একজন নাট্য পরিচালক। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাতে হঠাৎ করে বুকে ব্যথা অনুভব করেন সিরাজ হায়দার।
সকালে হাসপাতালে নেয়ার আগেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। গতকাল বাদ জোহর দীর্ঘদিনের কর্মস্থল এফডিসিতে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় তার সহকর্মীরা অশ্রুসজল চোখে তাকে শেষশ্রদ্ধা জানান। এরপর তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় মুন্সীগঞ্জের মীরকাদিমে। সেখানে বাদ মাগরিব তার দাফন সম্পন্ন হয়। ৫৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন সিরাজ হায়দার। এই দীর্ঘ সময়ে তিনি অভিনয় করেছেন যাত্রা, মঞ্চ, রেডিও, টেলিভিশন নাটক এবং চলচ্চিত্রে। ১৯৬২ সালে নবম শ্রেণিতে পড়াকালীন ১৪ই আগস্ট পূর্ব পাকিস্তানের জাতীয় দিবসে ‘টিপু সুলতান’ নাটকে ‘করিম শাহ’ চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনয়ে পথচলা শুরু হয়েছিল তার। মঞ্চ নাটক নির্দেশনা দিয়েছেন মাত্র উনিশ বছর বয়সে। ১৯৭৬ সালে তিনি ‘রঙ্গনা নাট্যগোষ্ঠী’ নামে একটি নাট্যদল প্রতিষ্ঠা করেন এবং এ দলের হয়ে অনেক নাটকের নির্দেশনা দেন। মুক্তিযুদ্ধের পর চলচ্চিত্র পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুনের সহকারী হিসেবে ‘জল্লাদের দরবার’ নামক চলচ্চিত্রে কাজ শুরু করেন। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্রের নাম ‘সুখের সংসার’। নারায়ণ ঘোষ মিতা পরিচালিত এ চলচ্চিত্রে তিনি খলনায়ক চরিত্রে অভিনয় করেন। সিরাজ হায়দার দুটি চলচ্চিত্র পরিচালনাও করেছেন। এসবের মধ্যে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটির নাম ‘সুখ’। আর ‘আদম বেপারী’ নামের অন্য ছবিটি মুক্তি পায়নি। সিরাজ হায়দারের জন্ম মুন্সীগঞ্জের মীরকাদিমে। বাবা ছিলেন সেনাবাহিনীতে। নাম মেজর (অব.) খন্দকার ইসরাফিল হক। দুই বোন আর এক ভাইয়ের মধ্যে তিনি ছিলেন বেশ দুষ্ট প্রকৃতির। এ কারণে তাকে মামাবাড়ি শরীয়তপুরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। সেখানেই পড়াশোনা করার সময় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জাতীয় দিবস ১৪ই আগস্টে প্রথম ‘টিপু সুলতান’ নাটকে একমাত্র ছাত্র হিসেবে অভিনয়ের সুযোগ পান। ওই নাটকে তার সব শিক্ষক অভিনয় করেন। সেই থেকে শুরু। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের সময় ঢাকায় চলে আসেন তিনি। উঠেন গোপীবাগে চাচাতো বোনের বাসায়। তখন পাড়া-মহল্লা ও বিভিন্ন ক্লাবে অনুষ্ঠিত নাটকে অভিনয় করতে শুরু করেন। প্রথম বড় মঞ্চে অভিনয় করে ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটে এইচ আকবর পরিচালিত ‘কান্নাভেজা’ মাটি নাটকে। তার নায়িকা ছিলেন পল্লবী (নীলিমা দাস)। এরপর কাজী হাবিবের নির্দেশনায় কল্যাণ মিত্রের লেখা ‘কুয়াশা কান্না’ নাটকে অভিনয় করে বেশ পরিচিতি লাভ করেন। ১৯ বছর বয়সে তিনি মঞ্চনাটকের নির্দেশক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। নির্দেশনা দেন ‘দায়ী কে’ নামের একটি নাটক। এটির রচয়িতাও কল্যাণ মিত্র। বিক্রমপুরের বিকারী বাজার শহরের গ্রিন ওয়েলফেয়ার সেন্টার ক্লাবে এটি মঞ্চস্থ হয়। ৬৯-এর গণআন্দোলনে তার নেতা শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের নেতৃত্বে তিনি ঝাঁপিয়ে পড়েন। এক সময় স্ত্রী এবং ছয় মাসের শিশু সন্তানকে রেখে মুক্তিযুদ্ধে চলে যান। আগরতলায় গিয়ে নাটক করতে থাকেন। মুক্তিযোদ্ধাদেরও বিভিন্নভাবে সহায়তা করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ফিরে এসে আবদুল্লাহ আল মামুনের সহকারী হিসেবে ‘জল্লাদের দরবার’ নামক চলচ্চিত্রে কাজ করেন। এই ছবির প্রধান সহকারী পরিচালক ছিলেন শিবলী সাদিক। সেই সময় যাত্রা সম্রাট অমলেন্দু বিশ্বাসের সঙ্গে বেশ উল্লেখযোগ্যসংখ্যক যাত্রাপালায় অভিনয় করেন তিনি। ১৯৬৮ সাল থেকে তৎকালীন পাকিস্তান টেলিভিশনে (বর্তমানে বিটিভি) অভিনয় শুরু করেন। প্রায় ৪০০ সিনেমাতে অভিনয় করেছেন সিরাজ হায়দার। রেডিওতে খবরও পড়েছেন তিনি। ১৯৭৬ সালে তিনি ‘রঙ্গনা নাট্যগোষ্ঠী’ প্রতিষ্ঠা করে প্রথম নাটক ‘আলো একটু আলো’ মঞ্চস্থ করেন। তার লেখা ও নির্দেশনায় নাটকটি বেশ আলোচিত হয়। এরপর ‘রঙ্গনা নাট্যগোষ্ঠী’ তার নির্দেশনায় দর্শকদের উপহার দেয় ‘বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষা করিয়ে নিন’, ‘আদম বেপারী’, ‘বেয়াদবি মাফ করবেন’, ‘শয়তানের ব্লাডপ্রেসার’, ‘পাগলা ঘণ্টা থামাও’সহ প্রায় ২০টি নাটক। সর্বশেষ মঞ্চস্থ হয় ‘হায় দেবদাস’। সিরাজ হায়দারের হাত ধরে অভিনয়ে এসেছেন রাজীব, রোজিনা, দিলদার, সাদেক বাচ্চু, বাবুল আহমেদসহ অনেকেই।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

আইভীকে হাসপাতালে দেখে আসলেন ওবায়দুল

তিস্তা কূটনীতিতে চোখ ঢাকার

শাহজালালে বৈদেশিক মুদ্রাসহ দুই যাত্রী আটক

দারুণ শুরু বাংলাদেশের

ভারতের সুপ্রিম কোর্টে ফেলানী হত্যার রিট শুনানি ফের পেছালো

যশোরে বিএনপি নেতা অমিতের বক্তব্যে তোলপাড়

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু

‘বিষয়টি নিয়ে আমি বেশ উত্তেজিত’

পাঁচ দশকের দীর্ঘ লড়াই

ভিডিও দেখে অস্ত্রধারীদের খোঁজা হচ্ছে

‘অতিষ্ঠ হয়ে প্রেমিককে ছুরিকাঘাত’

ফল প্রকাশের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, অবরোধ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সময় লাগবে ৯ বছর!

মত প্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত, আক্রমণের শিকার নাগরিক সমাজ

মেয়র আইভী হাসপাতালে

জিয়াউর রহমানের ৮২ তম জন্মবার্ষিকী আজ